বুধবার, ২১ এপ্রিল, 2০২1
জনবল শূন্যতায় নুয়ে পড়ছে ফেনী জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ
হাজারিকা অনলাইন ডেস্ক
Published : Wednesday, 17 February, 2021 at 6:55 PM

ফেনী জেলা স্বাস্থ্য বিভাগে চিকিৎসক, নার্স, কর্মকর্তা-কর্মচারীর ১ হাজার ১৬০ পদের বিপরীতে ৪৫০টি পদে জনবল শূণ্য রয়েছে। কর্মকর্তা কর্মচারী শূন্যতায় এ বিভাগের সেবা কার্যক্রমে এক ধরনের স্থবিরতা নেমে এসেছে। এতে করে কাংখিত সেবা বি ত হচ্ছে ফেনীর ১৫ লক্ষাধিক মানুষ। জনবল সমস্যার পরও সাধ্যানুযায়ী চিকিৎসাসেবা দেয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে দাবী করেন জেলা সিভিল সার্জন মীর মোবারক হোসেন দিগন্ত।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ফেনীতে গত কয়েক বছর যাবত ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেলা সদর হাসপাতাল, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্র, কমিউনিটি ক্লিনিকসহ এ বিভাগের অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে বিপুল সংখ্যক পদে জনবল সংকট রয়েছে। এ জেলায় মঞ্জুরীকৃত পদের সংখ্যা ১ হাজার ১৬০টি। এর মধ্যে কর্মরত আছে ৭১০ জন। শুন্যপদ রয়েছে ৪৫০টি পদ। এতো অধিক সংখ্যক শুন্য পদ থাকায় দৈনন্দিন কার্যক্রম পরিচালনায় হিমসিম খাচ্ছে কর্তৃপক্ষ। কিছু কিছু প্রতিষ্ঠানে চুক্তিভিত্তিক লোক নিয়োগ দিয়ে কোন রকুম চালিয়ে যাচ্ছে ৩য় ও ৪র্থ শ্রেনীর কর্মচারীদের কার্যক্রম। সরকারী জনবল শূণ্য থাকায় কোন কোন ক্ষেত্রে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেনীর কর্মকর্তারা দৈনন্দিন কাজ সারাতে নিজেরাই বেতন দিয়ে লোক রেখেছেন।

জেলায় জনবল কাঠামোয় সবচেয়ে বেশি সংকট রয়েছে ৩য় ও ৪র্থ শ্রেনীর কর্মকর্তা ও কর্মচারী পদে। এ দুইটি শ্রেনীতে প্রায় অর্ধেক জনবলই নেই। জেলায় অফিস সহকারীর ১৯ পদের সবগুলোই শূণ্য রয়েছে। ৭ পরিসংখ্যান বীদের পোষ্ট থাকলেও কর্মরত নেই কেউ। ৭ স্টোর কিপারের মধ্যে কর্মরত আছে ৩ জন। ৩৫ ফার্মাসিস্টের ৩০ পদই শূণ্য রয়েছে। মাঠ পর্যায়ে কর্মরত ২০৫ স্বাস্থ্যসহকারীর ১০৫ পদই খালী পড়ে আছে দীর্ঘ দিন যাবত। খোদ জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরে ৩ জন অফিস সহকারীর পদ থাকলেও কর্মরত নেই কেউ। এছাড়াও সিভিল সার্জনের কার্যালয়ে ৩ জন মেডিকেল অফিসার, ১ জন পাবলিক হেলথ নার্স ও ১ জন পুষ্টিবিদের পদ দীর্ঘদিন শূণ্য রয়েছে। এতো বিশাল শূন্যপদ নিয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের দৈনন্দিন কাজ চালিয়ে নেয়া কিছুটা দু:স্বাধ্য হয়ে পড়েছে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

সূত্র আরো জানায়, জেলা স্বাস্থ্য বিভাগে প্রথম শ্রেনীর ডাক্তার ও চিকিৎসা কর্মকর্তার মোট ১৯২টি পদ রয়েছে। এখানে ৫৬টি পদ খালী রয়েছে। শুধু ১জন মেডিকেল অফিসার দিয়ে চলছে বক্ষব্যাধী হাসপাতাল। নামমাত্র ট্রমা সেন্টারটি সুবিশাল দালানে দাড়িয়ে থাকলেও সেখানে নেই অর্থপেডিক্স কনসালটেন্ট। পরশুরাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২৫ পদের ১৪ পদেই প্রথম শ্রেনীর জনবল নেই। ছাগলনাইয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেও খালী রয়েছে প্রথম শ্রেনীর ১০টি পদ। এছাড়াও বিভিন্ন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গাইনী কনসালটেন্ট ও এ্যানেসথেসিয়া কনসালটেন্ট না থাকায় প্রসূতি সেবা মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে।

এদিকে স্বাস্থ্য বিভাগের দ্বিতীয় শ্রেনীর জনবলের মধ্যে বেশিরভাগই রয়েছে। মূলত এ পদে কর্মরত ব্যক্তিরা রোগী ও সেবাগ্রহিতাদের কাছাকাছি থেকে সরাসরি পরিচর্যার দায়িত্ব পালন করে থাকেন। ফেনীর স্বাস্থ্য বিভাগে দ্বিতীয় শ্রেনীর ২৩৪ পদের মধ্যে কর্মরত আছেন ১৭৫ জন। ৫৯টি পদ শূন্য রয়েছে। মাত্র দুইজন নার্স দিয়ে চলছে ফুলগাজী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। পরশুরাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২৫ নার্সের মধ্যে কর্মরত আছেন মাত্র ৭ জন। ছাগলনাইয়ায় দ্বিতীয় শ্রেনীর ২৮ পদের ১২ পদই শূণ্য পড়ে আছে।

জেলায় তৃতীয় শ্রেনীর জনবলের প্রায় অর্ধেক শূণ্য পড়ে আছে। এখানে ৫১০ জনের মধ্যে কর্মরত আছেন মাত্র ২৮৬ জন। শূণ্য রয়েছে ২২৪ জন। এ শ্রেনীতে অফিস সহকারী, পরিসংখ্যানবিদ, স্টোর কিপার, ক্যাশিয়ার, উচ্চমান ও প্রধান সহকারীর পদ রয়েছে। ফেনী জেনারেল হাসপাতালে এ শ্রেনীর ৩৯ পদের ২০ পদ খালি রয়েছে। সোনাগাজী উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগে ৯২ পদের ৪৫ পদ খালি। একই ভাবে ছাগলইয়ায় ৭৪ পদের ৩৪ পদ, দাগনভূঞায় ৮২ পদের ২৯ পদ, পরশুরামে ৪৬ পদের ৩১ পদ ও সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৯৬ পদের ৩১ পদে কোন জনবল কর্মরত নেই। তৃতীয় শ্রেনীতে বক্ষ ব্যাধী হাসপাতাল ও ট্রমা সেন্টারে ৯টি পদ থাকলেও হাসপাতাল দুটিতে কেউ কর্মরত নেই। মঙ্গলকান্দিতে ২৫ শর্যার হাসপাতাল নির্মাণের ৪ বছরেও কোন পদ সৃষ্টি করা হয়নি। বক্ষব্যাধী ক্লিনিকে ৮ পদের বিপরীতে কর্মরত আছেন মাত্র ১ জন।

এদিকে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের চতুর্থ শ্রেনীর কর্মচারীদের ২২৪ পদের মধ্যে কর্মরত আছেন মাত্র ১১৩ জন। বাকী ১১১ জনের পদ শূণ্য রয়েছে। এ শ্রেনীতে অফিস সহায়ক, পরিচ্ছন্নতা কর্মী, মালি, ওয়ার্ডবয়, আয়া, দারোয়ান ও বাবুর্চিরমত গুরুত্বপূর্ণ পদবী রয়েছে। জেলায় ১৩ জন বাবুচির পদ থাকলেও দীর্ঘদিন সেগুলো শূণ্য পড়ে আছে। এছাড়াও ৭০ অফিস সহায়কের মধ্যে কর্মরত মাত্র ৮ জন। ২৯ পরিচ্ছন্নতা কর্মীর ২৬ পদ খালী। ১৩ দারোয়ানের মধ্যে কর্মরত আছেন ১ জন। ১৭ জন ওয়ার্ড বয়ের মধ্যে ১৩ পদে কেউ নেই। ১৩ আয়া পদে কাজ করছেন ৩ জন। বক্ষ ব্যাধী হাসপাতাল ও ট্রমা সেন্টারে ১৪ পদের সব পদই শূণ্য রয়েছে। এছাড়াও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স গুলোতে চতুর্থ শ্রেনীর প্রায় অর্ধেক জনবল নেই। এসব পদে শূণ্যপদ নিয়ে কোন দপ্তর চলতে পারেনা বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

এ বিষয়ে ফেনী জেলা সিভিল সার্জন ডা. মীর মোবারক হোসেন দিগন্ত জানান, জেলায় প্রায় ৪০ ভাগ জনবল না থাকায় স্বাস্থ্য সেবাখাতে নানা সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। জনবল সংকটের বিষয়টি লিখিত ভাবে উর্ধ্বতন পর্যায়ে জানানো হয়েছে। কিছু ব্যক্তির বদলী ও চাকুরীর মেয়াদ শেষ করে রিটার্ণমেন্টে গেলেও সে অনুপাতে ফেনী জেলায় জনবল নিয়োগ অথবা পদায়ন করা হয়নি। এতে করে দিন দিন জেলা স্বাস্থ্য বিভাগে জনবল সংকট প্রকট আকার ধারন করছে। কয়েকটি পদে আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে চুক্তিভিত্তিক জনবল নিয়ে দৈনন্দিন কাজ চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে। কিন্তুু এতে সংকটের সাময়িক উত্তোরণ হলেও স্থায়ী কোন সমাধান দেখা যাচ্ছেনা। তারপরও সাধ্যের মধ্যে সর্বোচ্চ সেবা দিতে আমরা যাবতীয় প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছি।


সম্পাদক : জয়নাল হাজারী।  ফোন : ০২-৯১২২৬৪৯
মোঃ ইব্রাহিম পাটোয়ারী কর্তৃক ফ্যাট নং- এস-১, জেএমসি টাওয়ার, বাড়ি নং-১৮, রোড নং-১৩ (নতুন), সোবহানবাগ, ধানমন্ডি, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
এবং সিটি প্রেস, ইত্তেফাক ভবন, ১/আর কে মিশন রোড, ঢাকা-১২০৩ থেকে মুদ্রিত।
আবু রায়হান (বার্তা সম্পাদক) মোবাইল : ০১৯৬০৪৯৫৯৭০ মোবাইল : ০১৯২৮-১৯১২৯১। মো: জসিম উদ্দিন (চীফ রিপোর্টার) মোবাইল : ০১৭২৪১২৭৫১৬।
বার্তা বিভাগ: ৯১২২৪৬৯, বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন: ০১৯৭৬৭০৯৯৭০ ই-মেইল : [email protected], Web : www.hazarikapratidin.com
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি