রবিবার, ১৭ নভেম্বর, ২০১৯
অর্থনীতি রসাতলে গেলেও নীরব মোদি: রাহুল গান্ধী
Published : Monday, 14 October, 2019 at 8:03 PM

অর্থনীতি রসাতলে গেলেও নীরব মোদি: রাহুল গান্ধীআন্তর্জাতিক ডেস্ক ॥
ভারতের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের নেতা রাহুল গান্ধী বলেছেন, দেশের অর্থনীতি রসাতলে গেলেও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মুখে কোনো কথা নেই! মহারাষ্ট্রে  বিধানসভা নির্বাচন উপলক্ষে রবিবার দলীয় এক সমাবেশে তিনি ওই মন্তব্য করেন। মোদির নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকারের তীব্র সমালোচনা করে রাহুল গান্ধী বলেন,  ‘দেশে বেকারত্ব রয়েছে। অর্থনীতি অতল গহ্বরে চলে গেছে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে কোনো বিবৃতি আসে না! দেশের কৃষকদের অবস্থা অত্যন্ত খারাপ। যুবকদের কী কর্মসংস্থান হচ্ছে? কৃষকরা কী ফসলের সঠিক দাম পাচ্ছেন? ঋণ মাফ হয়েছে?  ‘আচ্ছে দিন’ (সুদিন) এসে গেছে? যুবকদের জিজ্ঞেস করুন আপনি কী করছেন? তবে তারা বলবেন কিছুই না। কৃষকদের জিজ্ঞেস করুন আপনাদের কী অবস্থা? তারা বলছেন যে মোদিজি বরবাদ করে দিয়েছেন।’ দেশের পরিস্থিতি খুব খারাপ বলেও রাহুল গান্ধী মন্তব্য করেন। রাহুল বলেন, ‘কংগ্রেস দল, মনমোহন সিংজি (কংগ্রেসের সিনিয়র নেতা ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী) দেশের অর্থনীতিকে শক্তিশালী করার জন্য কাজ করেছিলেন কিন্তু এই সরকার অর্থনীতিকে ধ্বংস করে দিয়েছে। এ কারণেই নির্বাচনে তারা কখনও কাশ্মীর নিয়ে কথা বলবে, কখনও ৩৭০ ধারা নিয়ে কথা বলবে, আবার কখনও চাঁদ নিয়ে কথা বলবে। কিন্তু আসল ইস্যুতে তাদের মুখ থেকে একটি শব্দও বের হয় না।’ রাহুল বলেন, ‘আপনারা কী গণমাধ্যমে কখনও শুনেছেন যে মহারাষ্ট্রের কৃষকদের ঋণ মওকুফ করে দেয়া হয়েছে? মোদির এবং অমিত শাহের কাজ আসল বিষয়গুলো থেকে করবেট পার্ক, চাঁদ, চীন, জাপান, কোরিয়ার দিকে আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করতে।’ কংগ্রেসের অন্যতম এই নেতা বলেন, গত চল্লিশ বছরের মধ্যে এখন সর্বোচ্চ বেকারত্ব। দু’হাজার কারখানা বন্ধ হয়ে গেছে। অটোমোবাইল সেক্টর ধ্বংস হয়ে গেছে। গুজরাটে হীরে ও বস্ত্র শিল্প শেষ। কিন্তু গণমাধ্যমে এসব নিয়ে একটা কথাও নেই। বেকারত্ব চূড়ান্ত পর্যায়ে থাকলেও গণমাধ্যমে কী আপনাদের বেকারত্বের কথা উল্লেখ করা প্রয়োজন নয়?’ তিনি বলেন, ‘চীনের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বসেছিলেন। গণমাধ্যম দেখিয়েছে,  চীনের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বসে চা পান করছেন। কিন্তু নরেন্দ্র মোদি কী চীনের প্রেসিডেন্টকে জিজ্ঞেস করেছিলেন ডোকলামে কী হয়েছিলে? চীনের সেনাবাহিনী ভারতে প্রবেশ করেছিল, কিন্তু প্রধানমন্ত্রী মোদী কী চীনের প্রেসিডেন্টের কাছে এ নিয়ে কিছু জিজ্ঞেস করেছিলেন? একেবারেই না।’
রাহুল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ কর্মসূচিকে কটাক্ষ করে বলেন, বলেন, ‘দেশে ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ বিভক্ত হয়ে গেছে।
এখন কেবল ‘মেড ইন চায়না’  আছে। চীনের সমস্ত সংস্থা ভারতে রয়েছে। আপনি যদি কিছু কিনতে চান তাহলে তাতে ‘মেড ইন চায়না’ লেখা পাবেন। মোদী কি চীনের প্রেসিডেন্টকে এ প্রসঙ্গে কিছু বলেছেন? গণমাধ্যম কী তাকে (প্রধানমন্ত্রীকে) জিজ্ঞেস করেছিল যে ভারতে একের পর এক কারখানা বন্ধ হচ্ছে, আর অন্যদিকে চীনের যুবকরা কর্মসংস্থান পাচ্ছে? কিন্তু গণমাধ্যমে এসব আসবে না!’
রাহুল বলেন, ‘এ দেশের উন্নতি হয়েছে কারণ প্রত্যেক জাতি, প্রত্যেক ধর্মের মানুষ একসাথে ভারত গড়েছে। দেশ যত বেশি বিভক্ত হবে, ততই এ দেশের ক্ষতি হবে। কারণ এ দেশের শক্তি সকলের শক্তি, যখনই আপনি সবাইকে যুক্ত করবেন সাথে সাথে এই দেশ দ্রুত এগিয়ে যাবে।’



সম্পাদক : জয়নাল হাজারী।  ফোন : ০২-৯১২২৬৪৯
মোঃ ইব্রাহিম পাটোয়ারী কর্তৃক ফ্যাট নং- এস-১, জেএমসি টাওয়ার, বাড়ি নং-১৮, রোড নং-১৩ (নতুন), সোবহানবাগ, ধানমন্ডি, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
এবং সিটি প্রেস, ইত্তেফাক ভবন, ১/আর কে মিশন রোড, ঢাকা-১২০৩ থেকে মুদ্রিত।
আবু রায়হান (বার্তা সম্পাদক) মোবাইল : ০১৯৬০৪৯৫৯৭০ মোবাইল : ০১৯২৮-১৯১২৯১। মো: জসিম উদ্দিন (চীফ রিপোর্টার) মোবাইল : ০১৭২৪১২৭৫১৬।
বার্তা বিভাগ: ৯১২২৪৬৯, বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন: ০১৯৭৬৭০৯৯৭০ ই-মেইল : [email protected], Web : www.hazarikapratidin.com
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি