http://www.hazarikapratidin.com RSS feed from hazarikapratidin.com en http://www.hazarikapratidin.com - দিনাজপুরে ঘুসের ৮০ হাজার টাকাসহ সরকারি কর্মকর্তা আটক http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114589 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/25/1653489198_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/25/1653489198_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">ঘুসের ৮০ হাজার টাকাসহ দিনাজপুর কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর কার্যালয়ের উপ-মহাপরিদর্শক মোস্তাফিজুর রহমানকে আটক করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।<br><br>বুধবার (২৫ মে) বিকেলে দিনাজপুর শহরের বালুয়াডাঙ্গা অফিসে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের একটি টিম। <br><br>অভিযানে নেতৃত্ব দেন দুদকের উপ-পরিচালক আহসানুল কবির পলাশ।<br><br>জেলা দুদক সূত্র জানায়, গত ২৫ এপ্রিল চিরিরবন্দর উপজেলার আমবাড়ীতে অবস্থিত ইশান এগ্রো অ্যান্ড ফুডের জ্যেষ্ঠ নির্বাহী মো. রাশেদুজ্জামান রাসেল দিনাজপুর কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরে লাইসেন্স নবায়ন করতে যান। তখন উপ-মহাপরিদর্শক মোস্তাফিজুর রহমান লাইসেন্স নবায়নের জন্য ৮০ হাজার টাকা ঘুস দাবি করেন। তিনি ২৭ এপ্রিল রাশেদুজ্জামান রাসেলকে টাকা ও কাগজপত্রসহ আসতে বলেন।<br><br>পরে টাকা না দেওয়ায় রাসেলকে ফোন করে জানান, মিলের ইশতিয়াক আহমেদ ও ম্যানেজার আশরাফুলের নামে মামলা প্রক্রিয়াধীন। মামলা থেকে রেহাই পেতে সোমবার (২৩ মে) টাকাসহ তিনি অফিসে আসতে বলেন।<br><br>২৩ মে সকালে রাশেদুজ্জামান রাসেল কাগজপত্র নিয়ে গেলে তার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করে কাগজপত্র ফেরত দেন মোস্তাফিজুর। পরে রাসেল দিনাজপুর সমন্বিত জেলা দুদক কার্যালয়ে অভিযোগ করেন। পরে বুধবার দুপুরে ঘুসের ৮০ হাজার টাকাসহ কাগজপত্র নিয়ে ফের মোস্তাফিজুরের কাছে যান রাসেল। এ সময় ঘুসের টাকাসহ তাকে হাতেনাতে ধরে দুদক টিম।<br><br>আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে দুদকের উপ-পরিচালক আহসানুল কবির পলাশ জানান, উপ-মহাপরিদর্শক মোস্তাফিজুর রহমানের বিরুদ্ধে মামলা প্রক্রিয়াধীন।</body></HTML> 2022-05-25 20:32:45 1970-01-01 00:00:00 গণকমিশনের ভিত্তি নেই, বিশৃঙ্খলা করলে ব্যবস্থা: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114588 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/20/1653055146_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/20/1653055146_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">গণকমিশনের কোনো ভিত্তি নেই বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, গণকমিশনের নামে কেউ বিশৃঙ্খলা করলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।<br><br>শুক্রবার (২০ মে) দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। এদিন লায়ন্স ক্লাব ইন্টারন্যাশনালের ২৭তম বার্ষিক সম্মেলন হয়।<br><br>এসময় গণকমিশনের তালিকা সম্পর্কে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তারা ‘২০০৩ এ সন্ত্রাস’ নামে একটি বই প্রকাশ করেছে। এর ভেতরে কী লিখেছে আমি জানি না। তারা যাদের নামে সন্ত্রাস কিংবা দুর্নীতির দায়ভার দিচ্ছে সেটা আমরা দেখিনি, তাই এর সম্পর্কে কিছু বলতে পারবো না।<br><br>সম্প্রতি ১১৬ ওয়ায়েজিনের (ধর্মীয় বক্তা) একটি তালিকা দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) জমা দিয়েছে ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সমন্বয়ে গঠিত মৌলবাদী ও সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস তদন্তে গঠিত গণকমিশন।<br><br>দুদক চেয়ারম্যানের কাছে দেওয়া ২২শ পৃষ্ঠার প্রতিবেদনের ৭৬০ ও ৭৬১ পৃষ্ঠায় ধর্মীয় বক্তাদের নাম প্রকাশ করা হয়। এদের বিরুদ্ধে জঙ্গি অর্থায়ন ও ওয়াজের মাধ্যমে ধর্মীয় সম্প্রীতি নষ্ট করার অভিযোগ আনে গণকমিশন।<br><br>গণকমিশনের চেয়ারম্যান হলেন সাবেক বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক ও সদস্য সচিব ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ।<br><br>সে সময় অবসরপ্রাপ্ত এই বিচারপতি বলেন, আমরা নয় মাস তদন্ত করেছি। বহু ভুক্তভোগীর সাক্ষ্য নিয়েছি। দুদক চেয়ারম্যান আমাদের জানিয়েছেন অর্ধশতাধিক ওয়াজ ব্যবসায়ীর দুর্নীতির খোঁজ শুরু করেছেন।<br><br>ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ বলেন, সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী ও হেফাজতের কর্মকাণ্ড উঠে এসেছে। তাদের অর্থনৈতিক জবাবদিহিতার আওতায় আনা হবে বলে প্রত্যাশা করছি।</body></HTML> 2022-05-20 19:58:36 1970-01-01 00:00:00 আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরী আর নেই http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114587 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/19/1652972742_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/19/1652972742_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি’ গানের রচয়িতা বিশিষ্ট সাংবাদিক, গীতিকার, কলামিস্ট ও সাহিত্যিক আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরী আর নেই। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার ভোর ৬টা ৪০ মিনিটে লন্ডনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)<br><br>একুশে পদকপ্রাপ্ত সাংবাদিক স্বদেশ রায় জাগো নিউজকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।<br><br>১৯৩৪ সালের ১২ ডিসেম্বর বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জের উলানিয়ার চৌধুরীবাড়ি জন্মগ্রহণ করেন আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরী। তার বাবা হাজি ওয়াহিদ রেজা চৌধুরী ও মা জহুরা খাতুন। ১৯৫০ সালে গাফ্‌ফার চৌধুরী পরিপূর্ণভাবে কর্মজীবন শুরু করেন। এ সময় তিনি ‘দৈনিক ইনসাফ’ পত্রিকায় সাংবাদিক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। মহিউদ্দিন আহমদ ও কাজী আফসার উদ্দিন আহমদ তখন ‍‘দৈনিক ইনসাফ’ পরিচালনা করতেন। ১৯৫১ সালে ‘দৈনিক সংবাদ’ প্রকাশ হলে গাফ্‌ফার চৌধুরী সেখানে অনুবাদকের কাজ নেন। এরপর তিনি বহু পত্রিকার সঙ্গে যুক্ত হন।<br><br>মাসিক সওগাত, দিলরুবা, মেঘনা, ইত্তেফাক, আজাদ, জেহাদ ও পূর্বদেশসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ পদে কাজ করেন বরেণ্য এই সাংবাদিক। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে সপরিবারে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে আগরতলা হয়ে কলকাতা পৌঁছান। সেখানে মুজিবনগর সরকারের মুখপত্র সাপ্তাহিক জয়বাংলায় লেখালেখি করেন। এ সময় তিনি কলকাতায় দৈনিক আনন্দবাজার ও যুগান্তর পত্রিকায় কলামিস্ট হিসেবেও কাজ করেন। ১৯৭২ সালে বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর দৈনিক জনপদ বের করেন।<br><br>১৯৭৩ সালে তিনি বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে আলজিয়ার্সে ৭২ জাতি জোট নিরপেক্ষ সম্মেলনে যান। দেশে ফেরার পর তার স্ত্রী গুরুতর অসুস্থ হলে তাকে চিকিৎসার জন্য প্রথমে কলকাতা নিয়ে যান। সেখানে সুস্থ না হওয়ায় তাকে নিয়ে ১৯৭৪ সালের অক্টোবরে লন্ডনে যান। এরপর তার প্রবাসজীবনের ইতিহাস শুরু হয়।<br><br>সাংবাদিকতার পাশাপাশি গল্প, উপন্যাস, স্মৃতিকথা, ছোটদের উপন্যাসও লিখেছেন তিনি। ‘চন্দ্রদ্বীপের উপাখ্যান’, ‘সম্রাটের ছবি’, ‘ধীরে বহে বুড়িগঙ্গা’, ‘বাঙালি না বাংলাদেশী’সহ তার প্রকাশিত গ্রন্থ সংখ্যা প্রায় ৩০। এছাড়া তিনি কয়েকটি পূর্ণাঙ্গ নাটক লিখেছেন। এর মধ্যে আছে ‘পলাশী থেকে ধানমন্ডি’, ‘একজন তাহমিনা’ ও ‘রক্তাক্ত আগস্ট’।<br><br>কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ বহু পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন গাফ্‌ফার চৌধুরী। ১৯৬৩ সালে ইউনেস্কো পুরস্কার পান তিনি। এছাড়া রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা স্বাধীনতা পুরস্কার, বাংলা একাডেমি পদক, একুশে পদক, শেরেবাংলা পদক, বঙ্গবন্ধু পদকসহ আরও অনেক পদকে ভূষিত হয়েছেন।</body></HTML> 2022-05-19 21:05:25 1970-01-01 00:00:00 সাক্কুকে আজীবনের জন্য বিএনপি থেকে বহিষ্কার http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114586 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/19/1652972672_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/19/1652972672_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের বিদায়ী মেয়র মনিরুল হক সাক্কুকে আজীবনের জন্য দল থেকে বহিষ্কার করেছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)। তিনি কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।<br><br>বৃহস্পতিবার (১৯ মে) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে দলের সহ-দপ্তর সম্পাদক সাইফুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।<br><br>বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দলীয় শৃঙ্খলাবহির্ভূত কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার জন্য কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপি’র সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মনিরুল হক সাক্কুকে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি’র প্রাথমিক সদস্য পদসহ সব পর্যায়ের পদ থেকে আজীবন বহিষ্কার করা হয়েছে।<br><br>এখন থেকে দলের নেতাকর্মীদের তার সঙ্গে কোনো ধরনের যোগাযোগ না রাখার জন্য অনুরোধ করা হলো।<br><br>এর আগে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে পদত্যাগ করেন মনিরুল হক সাক্কু।<br><br>বৃহস্পতিবার (১৯ মে) বিকেলে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি বেগম রাবেয়া চৌধুরীর বাসায় সাক্কুর ব্যক্তিগত সহকারী মো. কবির হোসেন মজুমদার তার পক্ষে পদত্যাগপত্রটি জমা দেন। পরে সন্ধ্যা ৭টার দিকে কবির হোসেন মজুমদার জাগো নিউজকে সাক্কুর পদত্যাগের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।</body></HTML> 2022-05-19 21:04:05 1970-01-01 00:00:00 হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়লো চারদিন http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114585 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/18/1652892860_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/18/1652892860_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">সরকারি-বেসরকারি হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় আরও চারদিন বাড়িয়ে জরুরি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়। বুধবার নিবন্ধনের সময় বাড়ানোর বিষয়ে এ বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়।<br><br>আগের নির্ধারিত সময় অনুযায়ী আজ বুধবারই নিবন্ধন শেষ হওয়ার কথা ছিলো। এর আগে, গত সোমবার (১৬ মে) সরকারি-বেসরকারি হজযাত্রী নিবন্ধন শুরু হয়েছে।<br><br>বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সকলের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, ২০২২ সালের জন্য সরকারি ও বেসরকারি উভয় ব্যবস্থাপনার নিবন্ধন কার্যক্রম আগামী ২২ মে পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হলো।<br><br>বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, বিশেষভাবে দ্রষ্টব্য যে, আগামী শনিবার (২১ মে) হজ কার্যক্রমে সম্পৃক্ত ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট শাখা নিবন্ধনের অর্থ গ্রহণ করবে।<br><br>এর আগে, নিবন্ধনের বিজ্ঞপ্তিতে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় জানিয়েছিল, সরকারি ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে ২০২০ সালের নিবন্ধিত সব হজযাত্রী ও প্রাক-নিবন্ধনের সর্বশেষ ক্রমিক নম্বর ২৫ হাজার ৯২৪ পর্যন্ত এ বছর হজের নিবন্ধনের আওতায় আসবেন। বেসরকারি ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে ২০২০ সালের সব নিবন্ধিত ব্যক্তি এবার নিবন্ধনের আওতায় আসবেন।<br><br>সরকারিভাবে হজে যেতে প্যাকেজ-১ এ ৫ লাখ ২৭ হাজার ৩৪০ এবং প্যাকেজ-২ এ ৪ লাখ ৬২ হাজার ১৫০ টাকা খরচ ধরা হয়েছে। বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে যেতে প্যাকেজে খরচ ধরা হয়েছে ৪ লাখ ৫৬ হাজার ৬৩০ টাকা। বেসরকারিভাবে এজেন্সিগুলোর 'সাধারণ প্যাকেজ'র মাধ্যমে হজ পালনে খরচ হবে ৪ লাখ ৬৩ হাজার ৭৪৪ টাকা।</body></HTML> 2022-05-18 22:53:51 1970-01-01 00:00:00 পদ্মা সেতুর টোল চূড়ান্ত করে প্রজ্ঞাপন http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114584 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/17/1652802713_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/17/1652802713_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">পদ্মা সেতু দিয়ে পারাপারের জন্য যানবাহনের শ্রেণি ও টোল হার চূড়ান্ত করেছে সরকার। মঙ্গলবার এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করে গেজেট আকারে প্রকাশ করা হয়েছে।<br><br>টোল হার অনুযায়ী, পদ্মা সেতুতে চলাচলের ক্ষেত্রে মোটরসাইকেলে ১০০ টাকা, কার ও জিপ ৭৫০ টাকা, পিকআপ এক হাজার ২০০ টাকা, মাইক্রোবাস এক হাজার ৩০০ টাকা, ছোট বাস (৩১ আসন) এক হাজার ৪০০ টাকা, মাঝারি বাস (৩২ আসন বা এর বেশি) দুই হাজার টাকা, বড় বাস (থ্রি-এক্সেল) দুই হাজার ৪০০ টাকা, ছোট ট্রাক (পাঁচ টন পর্যন্ত) এক হাজার ৬০০ টাকা, মাঝারি ট্রাক (৫ টনের বেশি হতে ৮ টন) দুই হাজার ১০০ টাকা, মাঝারি ট্রাক (৮ টনের অধিক হতে ১১ টন) দুই হাজার ৮০০ টাকা, ট্রাক (৩ এক্সেল পর্যন্ত) পাঁচ ৫০০ টাকা, ট্রেইলার (৪ এক্সেল পর্যন্ত) ছয় হাজার টাকা, ট্রেইলার (৪ এক্সেলের অধিক) ছয় হাজারের সঙ্গে প্রতি এক্সেলের জন্য এক হাজার ৫০০ টাকা যুক্ত হবে।<br><br>আগামী ২৩ জুন পদ্মা সেতুতে যানবাহন চলাচল উম্মুক্ত করে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে সরকার। জুনে সেতুতে যান চলাচল উদ্বোধনের লক্ষ্য নিয়ে দিনরাত কাজ চলছে বলে প্রকল্পের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। তারা বলছেন, সেতুতে এখন যেসব টুকিটাকি কাজ আছে, তা জুনের মধ্যে শেষ হয়ে যাবে।<br><br>পদ্মা সেতুর (মূল সেতু) দৈর্ঘ্য ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার। দুই প্রান্তের উড়ালপথ (ভায়াডাক্ট) ৩ দশমিক ৬৮ কিলোমিটার। সব মিলিয়ে সেতুর দৈর্ঘ্য ৯ দশমিক ৮৩ কিলোমিটার। পদ্মা সেতু প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকা। <br></body></HTML> 2022-05-17 21:51:37 1970-01-01 00:00:00 খোলাবাজারে ১০০ টাকা ছাড়িয়েছে ডলার http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114583 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/17/1652802608_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/17/1652802608_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">মার্কিন ডলারের দাম ৮৭ টাকা ৫০ পয়সা নির্ধারণ করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। কিন্তু দেশের খোলাবাজারে ১০০ টাকার নিচে মিলছে না ডলার।<br><br>মঙ্গলবার (১৭ মে) বিভিন্ন মানি এক্সচেঞ্জ ঘুরে এবং ডলার কেনাবেচার সঙ্গে সম্পৃক্ত ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য পাওয়া গেছে।<br><br>মানি এক্সচেঞ্জের কর্মীরা জানিয়েছেন, এদিন তারা সর্বোচ্চ ১০০-১০০.৫০ টাকা করে ডলার কিনেছেন। বিপরীতে বিক্রি করেছেন ১০১-১০২ টাকায়। দাম বাড়লেও বাজারে পর্যাপ্ত পরিমাণে ডলার পাওয়া যাচ্ছে না বলে জানিয়েছেন তারা।<br><br>ডলারের দামের বিষয়ে রাজধানীর পল্টনের ক্যাপিটাল এক্সচেঞ্জের কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন জাগো নিউজকে বলেন, আজ আমরা ডলার ১০০ টাকা করে কিনেছি। বিক্রি করেছি ১০১ টাকা পর্যন্ত। গতকাল সোমবার (১৬ মে) ৯৭-৯৮ টাকা করে ডলার কেনাবেচা করেছি।<br><br>তিনি বলেন, দাম বাড়লেও বাজারে ডলার খুব একটা পাওয়া যাচ্ছে না। অল্প কিছু ডলার কেনাবেচা হচ্ছে। এবার ডলারের দাম কোথায় গিয়ে থামবে এবং কতদিন এ পরিস্থিতি থাকবে তা আমরাও বুঝতে পারছি না।<br><br>নয়াপল্টনের এ এইচ মানি চেঞ্জারের এক কর্মী বলেন, ৩১ মে থেকে হজ ফ্লাইট শুরু। হজকে কেন্দ্র করে ডলারের চাহিদা অনেক বেড়ে গেছে। চাহিদার তুলনায় বাজারে ডলারের জোগান কম। ডলারের দাম বাড়ার জন্য এটা একটা বড় কারণ। এ পরিস্থিতি থাকলে সামনে ডলারের দাম আরও বাড়তে পারে।<br><br>দিলকুশার আলফা মানি এক্সচেঞ্জের সামনে কথা হয় ডলার কেনাবেচার সঙ্গে সম্পৃক্ত মো. ফাহাদের সঙ্গে। তিনি বলেন, ডলারের বাজার গরম। এখন ডলার কিনতে হলে ১০২ টাকা দেওয়া লাগবে। আর বিক্রি করলে পাবেন ১০০ টাকা।<br><br>তিনি আরও বলেন, আজ ডলার ১০২ টাকা দিয়ে পাচ্ছি। আগামীকাল এই দামে নাও পেতে পারেন। ডলারের বাজার পরিস্থিতি ভালো না। হুটহাট দাম বাড়ছে, যা শুরু হয়েছে, তাতে ডলারের দাম কোথায় গিয়ে ঠেকবে তা বলা মুশকিল।<br><br>এদিকে সোমবার (১৬ মে) বাংলাদেশ ব্যাংক প্রতি ডলারের বিনিময় মূল্য ৮০ পয়সা বাড়িয়ে ৮৭ টাকা ৫০ পয়সা নির্ধারণ করে দেয়। তার আগে ৯ মে ডলারের বিনিময় মূল্য ২৫ পয়সা বাড়িয়ে ৮৬ টাকা ৭০ পয়সা করা হয়েছিল।<br><br>এছাড়া চলতি বছরের জানুয়ারিতে ডলারের বিনিময় মূল্য ২০ পয়সা বাড়িয়ে ৮৬ টাকা, ২৩ মার্চ আরও ২০ পয়সা বাড়িয়ে ৮৬ টাকা ২০ পয়সা এবং ২৭ এপ্রিল ২৫ পয়সা বাড়িয়ে এক ডলারের বিনিময় ৮৬ টাকা ৪৫ পয়সা করেছিল বাংলাদেশ ব্যাংক।<br><br>এদিকে ডলারের দাম বাড়ার পরিপ্রেক্ষিতে দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম বাড়িয়েছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস)। সবচেয়ে ভালো মানের বা ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) স্বর্ণের দাম এক হাজার ৭৪৯ টাকা বাড়িয়ে ৭৮ হাজার ২৬৫ টাকা করা হয়েছে।<br><br>এছাড়া ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম এক হাজার ৬৯১ টাকা বাড়িয়ে ৭৪ হাজার ৭০৮ টাকা হয়েছে। ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম এক হাজার ৩৯৯ টাকা বাড়িয়ে করা হয়েছে ৬৪ হাজার ৩৫ টাকা। আর সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম এক হাজার ১৬৭ টাকা বাড়িয়ে ৫৩ হাজার ৩৬৩ টাকা করা হয়েছে।</body></HTML> 2022-05-17 21:49:39 1970-01-01 00:00:00 বাংলাদেশে ভারতের গম আমদানিতে বাধা নেই http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114582 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/16/1652717698_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/16/1652717698_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">ভারত গম রপ্তানি নিষিদ্ধ করেছে- সম্প্রতি এমন খবর ছড়িয়ে পড়ার পর দেশে খাদ্য সংকট তৈরি অথবা দাম বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কাপ্রকাশ করেছেন অনেকে। তবে এ নিয়ে খুব বেশি দুশ্চিন্তার কিছু নেই। কারণ প্রতিবেশী দেশ হিসেবে বাংলাদেশে ভারতের গম রপ্তানি বন্ধ হচ্ছে না। রোববার (১৫ মে) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে তথ্য নিশ্চিত করেছে ঢাকার ভারতীয় হাইকমিশন।<br><br>বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সম্প্রতি বিভিন্ন গণমাধ্যমে ভারতে গম রপ্তানির ওপর ‘নিষেধাজ্ঞা’র খবর প্রকাশিত হয়েছে। অভ্যন্তরীণ খাদ্যের প্রাপ্যতা নিশ্চিত করা, খাদ্যমূল্যের সঙ্গে সম্পর্কিত মূল্যস্ফীতি কমানো এবং ভারতের প্রতিবেশী ও খাদ্য নিরাপত্তার ঝুঁকিতে থাকা অন্য দেশগুলোর চাহিদা পূরণে সহায়তার জন্য এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।<br><br>ভারতীয় হাইকমিশনের দেওয়া বিজ্ঞপ্তিতে স্পষ্ট বলা হয়েছে, ভারতে গম রপ্তানির ওপর আরোপিত বিধিনিষেধ এরই মধ্যে চুক্তিবদ্ধ চালানের ওপর কোনো প্রভাব ফেলবে না। এই নির্দেশাবলী ভারতের প্রতিবেশী দেশগুলোতেও গম রপ্তানি আটকাবে না।<br><br>পাশাপাশি, অন্য যেসব দেশ অভ্যন্তরীণ চাহিদা মেটাতে ভারতীয় গম আমদানি করতে ইচ্ছুক, সেসব দেশের সরকারের অনুরোধ সাপেক্ষেও গম রপ্তানি চলবে।<br><br>এর আগে, দেশীয় বাজারে দাম কমানোর লক্ষ্যে গত শুক্রবার গম রপ্তানি নিষিদ্ধ করে ভারত। দেশটির ডিরেক্টরেট জেনারেল অব ফরেন ট্রেডের (ডিজিএফটি) জারি করা বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ভারত সরকার দেশের সামগ্রিক খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত এবং প্রতিবেশী ও অন্যান্য অরক্ষিত দেশগুলোর চাহিদাকে সমর্থনের জন্য এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।<br><br>বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, যেসব রপ্তানি চালানের ঋণপত্র (এলসি) বিজ্ঞপ্তির আগেই ইস্যু করা হয়েছে, সেগুলো যেতে পারবে। এছাড়া সরকারি অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে ভারত সরকারের অনুমোদন সাপেক্ষে অন্য দেশেও গম রপ্তানির অনুমতি দেওয়া হবে। শুক্রবার ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই কার্যকর হয় এ নিষেধাজ্ঞা।<br><br>পরিমাণ ও মূল্য উভয় দিক থেকে ভারতীয় গমের সবচেয়ে বড় ক্রেতা বাংলাদেশ। ২০২০-২১ অর্থবছরে ভারতের মোট গম রপ্তানির ৫৪ শতাংশই এসেছে বাংলাদেশে। ওই বছর ভারতীয় গমের শীর্ষ ১০ ক্রেতা ছিল বাংলাদেশ, নেপাল, সংযুক্ত আরব আমিরাত, শ্রীলঙ্কা, ইয়েমেন, আফগানিস্তান, কাতার, ইন্দোনেশিয়া, ওমান ও মালয়েশিয়া।<br><br>বিশ্বের মোট গম রপ্তানির ২৯ শতাংশই সরবরাহ করে রাশিয়া ও ইউক্রেন। গত ২৪ ফেব্রুয়ারি দুই দেশের মধ্যে সংঘাত শুরুর পর থেকে আন্তর্জাতিক ভোগ্যপণ্যের বাজারে রীতিমতো আগুন লেগেছে। হু হু করে দাম বেড়েছে গমেরও।<br><br>যুদ্ধের কারণে ইউক্রেনের রপ্তানি বন্ধ আর রাশিয়ার ওপর পশ্চিমাদের নিষেধাজ্ঞার কারণে বিশ্বব্যাপী ভারতীয় গমের চাহিদা বেড়েছে। ভারতের গম রপ্তানিকারকরা জানিয়েছেন, রাশিয়া-ইউক্রেনের বিকল্প হিসেবে অনেক ক্রেতাই তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন।<br><br>এ অবস্থায় বৈশ্বিক চাহিদা ও মূল্যের ঊর্ধ্বগতি বিবেচনায় এ বছর রেকর্ড পরিমাণ গম রপ্তানির লক্ষ্য নির্ধারণ করেছিল ভারত। সপ্তাহখানেক আগেই দেশটি জানিয়েছিল, গম রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার কোনো পরিকল্পনা তাদের নেই। তবে স্থানীয় বাজারে মূল্যবৃদ্ধি ঠেকাতে শেষপর্যন্ত সেই পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হলো দেশটি।</body></HTML> 2022-05-16 22:14:41 1970-01-01 00:00:00 স্বায়ত্তশাসিত-আধা সরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মীদেরও বিদেশ ভ্রমণ বন্ধ http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114581 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/16/1652717599_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/16/1652717599_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">সরকারি কর্মচারী-কর্মকর্তাদের পর এবার রাষ্ট্রায়ত্ত, স্বায়ত্তশাসিত, আধা সরকারি প্রতিষ্ঠান এবং রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীদেরও বিদেশ ভ্রমণ বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়।<br><br>সোমবার (১৬ মে) এ বিষয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থবিভাগ এক পরিপত্র জারি করেছে।<br><br>এতে বলা হয়, পরিচালন ও উন্নয়ন বাজেটের আওতায় রাষ্ট্রায়ত্ত, স্বায়ত্তশাসিত, আধা সরকারি প্রতিষ্ঠান এবং রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীদেরও বিদেশ ভ্রমণ বন্ধ থাকবে।<br><br>এর আগে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের ওপর চাপ কমাতে গত ১২ মে রাজস্ব ও উন্নয়ন বাজেটের আওতায় বিদেশ সফর বন্ধ করা হয়।<br><br>ওই দিন অর্থ বিভাগের ব্যয় ব্যবস্থাপনা-৬ অধিশাখার এক পরিপত্রে বলা হয়, কোভিড-১৯ পরবর্তী অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার এবং বর্তমান বৈশ্বিক সংকটের প্রেক্ষাপটে পুনরায় আদেশ না দেওয়া পর্যন্ত সব প্রকার এক্সপোজার ভিজিট, স্টাডি ট্যুর ও ইনোভেশনের আওতাভুক্ত ভ্রমণ এবং ওয়ার্কশপ, সেমিনারে অংশগ্রহণসহ সব প্রকার বিদেশ ভ্রমণ বন্ধ থাকবে।<br><br>তার আগের দিন সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জানান, বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বিদেশ সফরে যেতে পারবেন না।<br><br>অহেতুক ব্যয় কমাতে উদ্যোগ নেওয়া হলেও সরকারি কর্মকর্তাদের বিদেশ সফর বেড়ে গেছে- এ বিষয়ে জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, আমরা এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যেগুলো আপনারা দেখছেন এগুলো আগের অনুমোদন নেওয়া। সেসব ক্ষেত্রে আমরা অনুমোদন দিয়েছি। এখন থেকে এটা পরিষ্কারভাবে প্রধানমন্ত্রী বলে দিয়েছেন, যদি কোনো প্রয়োজন না থাকে তাহলে বিদেশ সফর আর নয়। যদি কোনো বিশেষ প্রয়োজন হয় তাহলে তারা যাবেন, অন্যথায় কেউ যাবেন না। এটা কমানো হবে।</body></HTML> 2022-05-16 22:12:57 1970-01-01 00:00:00 ১১০ টাকায় তেল বিক্রির ঘোষণা দিয়ে হঠাৎ স্থগিত করলো টিসিবি http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114579 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/14/1652632990_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/14/1652632990_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">১৬ মে থেকে খোলাবাজারে ১১০ টাকা লিটার সয়াবিন তেলসহ অন্যান্য পণ্য বিক্রি শুরু করার কথা ছিল ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি)। কিন্তু রোববার (১৫ মে) সন্ধ্যায় হুট করেই সেই কার্যক্রম স্থগিত করে বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে সংস্থাটি।<br><br>সংস্থাটি বলছে, রাজধানীতেও এখন শুধু ফ্যামিলি কার্ডে পণ্য দেওয়া হবে। খোলাবাজারে ট্রাকে করে আর পণ্য বিক্রি হবে না। ফ্যামিলি কার্ড কার্যক্রম বাস্তবায়নে সোমবার (১৬ মে) থেকে খোলা বাজারে পণ্য বিক্রি স্থগিত করা হয়েছে।<br><br>টিসিবির বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিক্রয় কার্যক্রম সুশৃঙ্খলভাবে পরিচালনা এবং প্রকৃত সুবিধাভোগীর নিকট নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য সাশ্রয়ী মূল্যে পৌঁছানোর লক্ষ্যে সরকার নীতিগতভাবে ফ্যামিলি কার্ডের মাধ্যমে টিসিবির পণ্য (ভোজ্যতেল, মশুর ডাল, চিনি) বিক্রির সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। ঢাকা (উত্তর ও দক্ষিণ) ও বরিশাল সিটি করপোরেশনে ফ্যামিলি কার্ড প্রণয়ন ও বিতরণ কার্যক্রম চলমান রয়েছে।<br><br>ফ্যামিলি কার্ড বিতরণ কার্যক্রম সম্পন্ন হওয়ার পর হতে শুধুমাত্র এই কার্ডের মাধ্যমেই টিসিবির পণ্য বিক্রয় বিক্রয় কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।<br><br>সে কারণে ওই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের নিমিত্তে চলতি মাসের স্বল্প পরিসরে সাধারণ ট্রাকসেল কার্যক্রম (১৬ হতে ৩০ পর্যন্ত) স্থগিত করা হলো।<br><br>আগামী জুন মাসে ফ্যামিলি কার্ডের মাধ্যমে এক কোটি নিম্নআয়ের পরিবারের নিকট টিসিবি কর্তৃক ভর্তুকিমূল্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য বিক্রি করা হবে বলে টিসিবি জানায়।<br><br>এতদিন রাজধানীতে খোলাবাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য সহনীয় রাখতে সারাদেশের নিম্নআয়ের পরিবারের মাঝে সাশ্রয়ী ও ভর্তুকিমূল্যে এসব পণ্য বিক্রি করেছে সরকারি এ বিপণন সংস্থা। যা রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে ট্রাকে করে ভ্রাম্যমাণভাবে বিক্রি করা হতো। ফ্যামিলি কার্ড প্রবর্তনের কারণে এ সুযোগ এখন আর থাকছে না।</body></HTML> 2022-05-15 22:42:38 1970-01-01 00:00:00 পিকে হালদার ভারতে গ্রেপ্তার http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114578 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/14/1652544389_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/14/1652544389_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">প্রায় সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা পাচারের অভিযোগ নিয়ে বিদেশে পলাতক এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রশান্ত কুমার ওরফে পিকে হালদার ভারতে গ্রেপ্তার হওয়ার খবর এসেছে।<br><br>নাম বদলে দেশটিতে অবস্থান করা পিকে হালদারকে পশ্চিমবঙ্গ থেকে গ্রেপ্তার করেছে ভারতের অর্থ সংক্রান্ত কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা বাহিনী এনফোর্সমেন্ট ডাইরেক্টরেট—ইডি। একইসঙ্গে তার পাঁচ সহযোগীও ধরা পড়েছেন বলে ভারতীয় গণমাধ্যমে বলা হচ্ছে।<br><br>এর আগে শুক্রবার পশ্চিমবঙ্গের অশোকনগরসহ অন্তত দশটি জায়গায় একযোগে অভিযান চালায় ইডি। অভিযানে পিকে হালদারের অর্থ পাচারের বেশকিছু নথিপত্রসহ স্বপন মিত্র নামে একজনকে আটক করা হয়। শনিবারও পিকে হালদারের ঘনিষ্ঠ সহযোগীদের সন্ধানে ভারতের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালায় ইডি।<br><br>বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট ও দুদকের অনুরোধে ভারতের অর্থ সংক্রান্ত কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা বাহিনী এ অভিযান চালাচ্ছে বলে ঢাকাটাইমসকে জানিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশন—দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান।<br><br>শুক্রবার অশোকনগরের ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের ভারতী ক্লাব এলাকার সুকুমার মৃধা, তার মেয়েজামাই সঞ্জীব হাওলাদার, পিকে হালদারের আত্মীয় প্রণব কুমার হালদার, তার দুই ছেলের বাড়িতেও অভিযান চালানো হয়।<br><br>সুকুমার মৃধা দেশে পিকে হালদারের আইনজীবী ছিলেন। পিকে হালদার কাণ্ডে মেয়ে অনিন্দিতা মৃধাসহ তাকে গেল বছর দুদক গ্রেপ্তার করার পর তারা এখন কারাগারে।<br><br>অশোকনগরে মাছ ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত সুকুমার পিকে হালদারের ঘনিষ্ট সহযোগী। তবে তিনি সেখানে নিজেকে পিকে হালদারের ক্লায়েন্ট হিসেবে পরিচয় দিতেন।<br><br>ইডির সূত্র বলছে, বাংলাদেশ থেকে পিকে হালদারের লুট করা টাকা দিয়ে বিপুল সম্পত্তি ক্রয়ে এই দুজনের দীর্ঘদিনের যোগসাজশ রয়েছে। অশোকনগরের নবজীবন পল্লীতে প্রশান্ত কুমার হালদারের আত্মীয় প্রণব কুমার হালদারের বিলাসবহুল বাগানবাড়ি রয়েছে। এটির পাশেই সুকুমার মৃধার আছে আরেকটি বিলাসবহুল বাগানবাড়ি।<br><br>অশোকনগরের এই এলাকাতেই একাধিক সম্পত্তি ক্রয় করেছে পিকে হালদার-সুকুমার মৃধা জুটি। শুক্রবার এখানকার তিনবাড়িতে অভিযান চালানোর সময় সুকুমার মৃধার জামাতা সঞ্জীব হাওলাদারকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।<br><br>অশোকনগরের যে বাগানবাড়িতে সঞ্জীব থাকতেন সেটি পিকে হালদারের ভাই প্রীতিশ হালদারের নামে কেনা। তবে তিন বছর আগে সুকুমার মৃধার কাছে প্রীতিশ বাড়িটি হস্তান্তর করেন।<br><br>শুক্রবারের ইডি অভিযানে স্বপন মিত্র নামে আরও এক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করে ইডি। তার কাছ থেকে বেশকিছু নথিপত্রও জব্দ করা হয়েছে। স্বপন মিত্র পিকে হালদারের অর্থ পাচারের সহযোগী বলে তদন্তে উঠে এসেছে।</body></HTML> 2022-05-14 22:06:06 1970-01-01 00:00:00 গোপালগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৯ http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114577 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/14/1652544326_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/14/1652544326_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে বাস-প্রাইভেটকার-মোটরসাইকেল ও ধানভাঙা মাড়াইকলের চতুর্মুখী সংঘর্ষে একই পরিবারের তিনজনসহ নয়জন নিহত হয়েছেন। এসময় আহত হন অন্তত ২৫ জন। শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে কাশিয়ানী উপজেলার ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের দক্ষিণ ফুকরা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।<br><br>নিহতরা হলেন- ঢাকা বারডেম হাসপাতালের চিকিৎসক ও গোপালগঞ্জ শহরের বটতলা এলাকার প্রফুল্ল কুমার সাহার ছেলে ডা. বাসুদেব কুমার সাহা (৫২), তার স্ত্রী শিবানী সাহা (৪৮), ছেলে আহসান উল্লাহ প্রকৌশলী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইইই বিভাগের শিক্ষার্থী স্বপ্নীল সাহা (১৯), প্রাইভেটকারচালক আজিজুর ইসলাম (৪৪), কাশিয়ানী উপজেলার দক্ষিণ ফুকরা গ্রামের পিয়ার আলী মোল্যার ছেলে ফিরোজ মোল্যা (৪৮), তার স্ত্রী রুমা বেগম ( ৪০) এবং ওই গ্রামের জিন্দার ফকিরের ছেলে অনিক মিয়া (২৮) অনিকের নববিবাহিত স্ত্রী ইয়াসমিন আক্তার (১৯)। এছাড়া নিহত একজনের পরিচয় জানা যায়নি।<br><br>পুলিশ জানায়, কাশিয়ানি উপজেলার দক্ষিণ ফুকরা এলাকায় স্থানীয় লোকজন মহাসড়কের উপর ধান মাড়াই করছিল। এসময় রাজিব পরিবহনের একটি বাস-প্রাইভেটকার-ধানভাঙা মাড়াইকল ও মোটরসাইকেলের চতুর্মুখী সংঘর্ষ হয়। এ সময় ঘটনাস্থলেই ডা. বাসুদেব সাহা, তার স্ত্রী ও সন্তানসহ সাতজন নিহত হন। আহত হন অন্তত ২৫ জন। পরে ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ ও স্থানীয়রা আহতদের দ্রুত উদ্ধার করে গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও দুজনের মৃত্যু হয়।<br><br>আহত ২৫ জনের মধ্যে ১৯ জনের পরিচয় জানা গেছে। তারা হলেন- গোপালগঞ্জের দিদার শরীফ (৫০), সোবাহান (৩৮), রুমা (৩০), মাসুম মোল্লা (১৩), ইসমত আরা (৪০) , আলিফ (৫), সিফাত (৩), নড়াইলের বাদল (২৫), বায়েজিদ (১২), মারুফ (২২), ঢাকার আরজু বেগম (৩৫), ফারুক হোসেন (৫০), হিরা বেগম (৩৬), হাওয়া বেগম (৩৪), হোসাইন (১২), আব্দুর রহমান (৫), পিরোজপুরে কালাম মোল্যা (৪৭), কামরুল (৪৬), শরীয়তপুরের জোহরা (৭৫)।<br><br>চিকিৎসকরা জানান, আহত কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক থাকায় নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।<br><br>খবর শুনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা, পুলিশ সুপার আয়েশা সিদ্দিকা ও ফায়ার সার্ভিস, কাশিয়ানী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মেহেদী হাসানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। দুর্ঘটনার পর ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে প্রায় এক ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ থাকে।<br><br>জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা জানান, মহাসড়কে ধান মাড়াই ও যানবাহনের দ্রুতগতির কারণে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। নিহত ও আহতদের উদ্ধার করে গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আহতদের সর্বোচ্চ চিকিৎসা দেওয়ার জন্য চিকিৎসকদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।</body></HTML> 2022-05-14 22:03:20 1970-01-01 00:00:00 সরকারি কর্মকর্তাদের বিদেশ সফরে নিষেধাজ্ঞা, পরিপত্র জারি http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114576 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/12/1652372175_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/12/1652372175_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">বৈদেশিক মুদ্রার ব্যয় কমাতে সরকারি কর্মকর্তাদের বিদেশ সফরে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে সরকার। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এ আদেশ বলবৎ থাকবে।<br><br>বৃহস্পতিবার অর্থমন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব মোহাম্মদ শওকত উল্লাহর স্বাক্ষরে এ সংক্রান্ত পরিপত্র জারি করেছে সরকারের অর্থ বিভাগের ব্যয় ব্যবস্থাপনা-৬ অধিশাখা।<br><br>এতে বলা হয়েছে, ‘করোনাভাইরাস পরবর্তী অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার এবং বর্তমান বৈশ্বিক সংকটের প্রেক্ষাপটে পুনরাদেশ না দেওয়া পর্যন্ত সকল প্রকার এক্সপোজার ভিজিট, স্টাডি ট্যুর, এপিএ ও ইনোভেশনের আওতাভুক্ত ভ্রমণ এবং কর্মশালা ও সেমিনারে অংশগ্রহণসহ সকল প্রকাশ বৈদেশিক ভ্রমণ বন্ধ থাকবে।’<br><br>এ আদেশ উন্নয়ন বাজেট ও পরিচালন বাজেট উভয় ক্ষেত্রে প্রযোজ্য এবং কার্যকর হবে বলেও জানানো হয়।<br><br>এর আগে বুধবার অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে বলেন, ‘জরুরি প্রয়োজন ছাড়া নতুন করে বিদেশ ভ্রমণের অনুমোদন না দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন। ফলে আপাতত বিদেশ সফর নয়। ’<br><br>সম্প্রতি ধারাবাহিকভাবে বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ কমছে। বিশ্ববাজারে পণ্যমূল্য বেড়ে যাওয়ায় আমদানি বাবদ প্রচুর ব্যয় হচ্ছে। ফলে দেশে ডলারের চাহিদা বেড়েছে ব্যাপকভাবে। পরিস্থিতি সামাল দিতে বাংলাদেশ ব্যাংক ডলার বিক্রি করছে। চলতি অর্থবছরের এ পর্যন্ত কেন্দ্রীয় ব্যাংক ৫০০ কোটি ডলার বিক্রি করেছে। এ অবস্থায় সরকার বিভিন্নভাবে বৈদেশিক মুদ্রার ব্যয় কমাতে চাচ্ছে। এরইমধ্যে বিলাস পণ্যের আমদানি কমাতে এলসি মার্জিন বাড়িয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।<br><br>সরকারের অর্থায়নে বাস্তবায়নের জন্য নির্বাচিত যেসব প্রকল্পে বৈদেশিক মুদ্রা ব্যয়ের বিষয় রয়েছে সেগুলো দেরিতে বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।<br><br>বৈশ্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় বৈদেশিক মুদ্রা ব্যয়ে লাগাম টানার এ চেষ্টা সরকারের।<br><br></body></HTML> 2022-05-12 22:14:58 1970-01-01 00:00:00 শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন রনিল বিক্রমাসিংহে http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114575 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/12/1652371147_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/12/1652371147_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">সংকটকালে শ্রীলঙ্কার নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন রনিল বিক্রমাসিংহে। বৃহস্পতিবার (১২ মে) স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৭টার দিকে তাকে শপথবাক্য পাঠ করান লঙ্কান প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসে। ৭৩ বছর বয়সী অভিজ্ঞ এ রাজনীতিবিদ শ্রীলঙ্কার ইউনাইটেড ন্যাশনাল পার্টির (ইউএনপি) নেতা।<br><br>লঙ্কান সংবাদমাধ্যম ডেইলি মিরর জানিয়েছে, প্রেসিডেন্টের সরকারি বাসভবনে শপথ নেন বিক্রমাসিংহে এবং তারপর আশীর্বাদ নিতে ওয়ালুকারমা মন্দিরে যান।<br><br>মাহিন্দা রাজাপাকসের পদত্যাগের পর থেকেই জল্পনা-কল্পনা চলছিল, বিপদকালে কে হবেন শ্রীলঙ্কার পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী? এর মধ্যেই গত বুধবার গোতাবায়া রাজাপাকসের সঙ্গে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন বিক্রমাসিংহে। তারপর থেকেই গুঞ্জন শুরু হয়, আগে পাঁচবার প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করা রনিল বিক্রমাসিংহেই দেশের হাল ধরতে চলেছেন।<br><br>সর্বপ্রথম ১৯৯৩ থেকে ১৯৯৪ সাল পর্যন্ত শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী ছিলেন বিক্রমাসিংহে। এরপর ২০০১ থেকে ২০০৪ সাল, ২০১৫ থেকে ২০১৫ (১০০ দিন), ২০১৫ থেকে ২০১৮ এবং ২০১৮ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত তিনি লঙ্কান প্রধানমন্ত্রীর পদে দায়িত্ব পালন করেছেন।<br><br>২০১৮ সালের অক্টোবরে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনা বিক্রমাসিংহেকে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে বরখাস্ত করেন। কিন্তু এর দুই মাস পরেই তাকে আবারও প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়।<br><br>১৯৪৯ সালের ২৪ মার্চ জন্মগ্রহণ করেন রনিল বিক্রমাসিংহে। ১৯৭৭ সালে প্রথমবারের মতো দেশটির সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন। সে সময় তিনি সবচেয়ে কম বয়সে মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নেন। ১৯৯৪ সালের পর থেকে ইউএনপির রাজনীতিতে যুক্ত রনিল বিক্রমাসিংহে।<br><br>১৯৪৮ সালে স্বাধীনতা লাভের পর থেকে সবচেয়ে ভয়াবহ আর্থিক সংকটে ভুগছে দক্ষিণ এশিয়ার দেশ শ্রীলঙ্কা। দেশটির চারদিকে এখন শুধুই হাহাকার। চলছে জ্বালানি তেলের তীব্র সংকট। তেল সংগ্রহের জন্য হাজার-হাজার মানুষ লাইনে ভিড় করছে। কাগজের অভাবে স্কুল পর্যায়ের পরীক্ষা বাতিল করতে বাধ্য হয়েছে শ্রীলঙ্কা। কারণ, কাগজ আমদানির মতো বৈদেশিক মুদ্রা তাদের কাছে নেই। বিদেশি ঋণের ভারে আজ জর্জরিত দ্বীপরাষ্ট্রটি। পরিস্থিতি এমন অবস্থায় ঠেকেছে, তারা নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের আমদানি ব্যয়ও মেটাতে পারছে না। যার ফলে জিনিসপত্রের দাম আকাশ ছুঁয়েছে।<br><br>দেশের অর্থনীতির এমন দুরবস্থার জন্য দায়ী করে প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসে ও তার ভাই প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকসের পদত্যাগ দাবিতে রাস্তায় নামে লঙ্কান জনগণ। শুরুর দিকে বিক্ষোভ শান্তিপূর্ণ থাকলেও ধীরে ধীরে তা সহিংস হয়ে ওঠে। বিশেষ করে, গত সোমবার বিক্ষোভকারীদের ওপর সরকার সমর্থকদের হামলার পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়।<br><br>এক রাতের মধ্যে আগুন দেওয়া হয় মন্ত্রী-এমপিসহ অর্ধশতাধিক নেতার বাড়ি ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে। বিক্ষোভ-সহিংসতায় প্রাণ হারান এক এমপি, আহত হন আরও একজন। হামলার শিকার হয়েছেন সরকারি কর্মকর্তারাও। পরে চাপের মুখে পদত্যাগ করেন লঙ্কান প্রধানমন্ত্রী। তবে প্রেসিডেন্টকেও ক্ষমতা ছাড়তে হবে দাবি করে এখনো আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন বিক্ষোভকারীরা।</body></HTML> 2022-05-12 21:58:29 1970-01-01 00:00:00 কারামুক্ত হলেও হাসপাতালেই থাকছেন সম্রাট http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114574 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/11/1652287325_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/11/1652287325_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট জামিনে মুক্ত হলেও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) থাকছেন।<br><br>জানা গেছে, তার শারীরিক অবস্থা ভালো নয়। মেডিকেল বোর্ডের পরামর্শ অনুযায়ী পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।<br><br>বুধবার (১১ মে) সন্ধ্যায় হাসপাতাল ও তার ঘনিষ্ঠ সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।<br><br>এদিকে, জামিনে কারামুক্ত হওয়ার পর হাসপাতালে তাকে দেখতে ভিড় করেন তার অনুসারীরা। এসময় অনেকে তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।<br><br>এর আগে বিকেল সাড়ে ৪টায় ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট জামিনে মুক্ত হওয়ার তথ্য নিশ্চিত করেন ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের (কেরানীগঞ্জ) জেলার মাহবুবুল ইসলাম।<br><br>তিনি জাগো নিউজকে বলেন, কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে কারা কর্মকর্তা জামিনের কাগজ নিয়ে গিয়ে বিএসএমএমইউ’র সিসিইউতে চিকিৎসাধীন সম্রাটের কাছে নিয়ম-কানুন মেনে তাকে জামিনে মুক্ত করেন। এসময় তার পাহারায় থাকা কারারক্ষীদের সরিয়ে নেওয়া হয়। বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে তাকে জামিনে মুক্ত করা হয়।<br><br>ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটের বিরুদ্ধে করা চার মামলাতেই জামিন মঞ্জুর করেন আদালত। নতুন করে আর কোনো মামলা না থাকায় কারামুক্তি পেলেন তিনি।<br><br>বুধবার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) মামলায় জামিন পান সম্রাট। ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৬-এর বিচারক আল আসাদ মো. আসিফুজ্জামান শুনানি শেষে তিন শর্তে ১০ হাজার টাকা মুচলেকায় ৯ জুন পর্যন্ত সম্রাটের জামিন মঞ্জুর করেন।<br><br>শর্তসমূহ হলো- আদালতের অনুমতি ছাড়া দেশত্যাগ করা যাবে না, পাসপোর্ট জমা দিতে হবে এবং স্বাস্থ্যগত পরীক্ষার প্রতিবেদন আদালতের ধার্য করা আগামী তারিখে জমা দিতে হবে।<br><br>এদিন মামলার অভিযোগ গঠনের জন্য দিন ধার্য ছিল। সম্রাটের আইনজীবী অভিযোগ গঠন শুনানি পেছানোর জন্য সময়ের আবেদন করেন। একই সঙ্গে তার জামিন আবেদনও করেন। অন্যদিকে দুদকের আইনজীবী জামিনের বিরোধিতা করেন। আদালত উভয় পক্ষের শুনানি শেষে তিন শর্তে ১০ হাজার টাকা মুচলেকায় ৯ জুন পর্যন্ত সম্রাটের জামিন মঞ্জুর করেন।<br><br>গত ১১ এপ্রিল রমনা থানার মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় শুনানি শেষে ১০ হাজার টাকা মুচলেকায় সম্রাটের জামিন মঞ্জুর করেন ঢাকার সপ্তম অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ তেহসিন ইফতেখার। আগের দিন ১০ এপ্রিল অস্ত্র মামলায় ঢাকার প্রথম অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ ফায়সাল আতিক বিন কাদের ও অর্থপাচার মামলায় ঢাকার অতিরিক্ত মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেন সম্রাটের জামিন মঞ্জুর করেন।<br><br>দুদকের মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটের বিরুদ্ধে দুই কোটি ৯৪ লাখ ৮০ হাজার ৮৭ টাকার জ্ঞাত-আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়। ২০১৯ সালের ১২ নভেম্বর তার বিরুদ্ধে মামলাটি করেন দুদকের উপ-পরিচালক মো. জাহাঙ্গীর আলম। ২০২০ সালের ২৬ নভেম্বর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।<br><br>২০১৯ সালের ৬ অক্টোবর ভোরে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থেকে সম্রাট ও তার সহযোগী এনামুল হক আরমানকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। পরে তাকে নিয়ে দুপুর দেড়টার দিকে তার কাকরাইলের কার্যালয়ে অভিযান চালানো হয়। এসময় ভেতর থেকে বিপুল পরিমাণ বিদেশি মদ, পিস্তল ও বিরল প্রজাতির বন্যপ্রাণীর চামড়া উদ্ধার করা হয়।<br><br>পরে বন্যপ্রাণীর চামড়া রাখার দায়ে তাকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। ওইদিনই রাত পৌনে ৯টার দিকে সম্রাটকে কারাগারে নেওয়া হয়।</body></HTML> 2022-05-11 22:40:36 1970-01-01 00:00:00 নিউমার্কেটে সংঘর্ষের দুই সূত্রপাতকারী গ্রেপ্তার http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114573 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/10/1652202421_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/10/1652202421_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">রাজধানীর নিউমার্কেট এলাকার ব্যবসায়ীদের সঙ্গে ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষের সূত্রপাতকারী ওয়েলকাম ফাস্টফুড কর্মচারী কাওসার ও বাবু নামে দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।<br><br>মঙ্গলবার রাজধানীর হাজারীবাগ এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।<br><br>মঙ্গলবার ডিএমপির (মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস) সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) আবু তালেব বাংলাদেশ জার্নালকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।<br><br>তিনি বলেন, গত ১৮ এপ্রিল ঘটনার দিন বিকেল ৫টায় ওয়েলকাম ফাস্টফুডের বাপ্পি ও ক্যাপিটাল ফাস্টফুডের কাওসার ও বাবুর সাথে ইফতারের টেবিলপাতা নিয়ে ঘটনার সূত্রপাত। যা সিসিটিভির ফুটেজে দেখা যায়। এই সংঘর্ষের ঘটনায় জড়িত থাকায় তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে।<br><br>এ বিষয়ে পরে বিস্তারিত জানানো হবে বলেও জানান তিনি।<br><br>উল্লেখ্য, গত ১৮ এপ্রিল দিনগত রাত ১২টার দিকে ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে নিউমার্কেটের ব্যবসায়ী ও দোকানকর্মীদের সংঘর্ষ শুরু হয়। প্রায় আড়াই ঘণ্টা চলে এ সংঘর্ষ।<br><br>এরপর রাতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলেও মঙ্গলবার সকাল ১০টার পর ফের দফায় দফায় চলে সংঘর্ষ। দিনভর সংঘর্ষের পর সন্ধ্যায় পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত হয়। সংঘর্ষের তৃতীয় দিন বুধবার সারাদিন থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করলেও সন্ধ্যার পর আবারও উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।<br><br>তিনদিনের সংঘর্ষের ঘটনায় দুইজন নিহত হন। উভয়পক্ষের অর্ধশতাধিক লোক আহত হয়ে ঢামেকসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হন। তাদের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা গুরুতর। সংঘর্ষে সাংবাদিকসহ পুলিশের অনেক সদস্য আহত হয়েছেন।<br><br>ওই সংঘর্ষের এ ঘটনায় মোট পাঁচটি মামলা হয়েছে। মোট আসামির সংখ্যা ১ হাজার ৭২৪। এর মধ্যে হত্যা মামলা দুটি, যেগুলোর তদন্ত করছে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। অন্য তিনটি মামলা তদন্ত করছে নিউমার্কেট থানার পুলিশ।</body></HTML> 2022-05-10 23:06:46 1970-01-01 00:00:00 ১৩ দিনে সড়কে ঝরলো ৬৮১ প্রাণ http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114572 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/10/1652202299_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/10/1652202299_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ২৮ এপ্রিল ঈদযাত্রা ও ৪ মে থেকে ১০ মে পর্যন্ত ঈদ পরবর্তী ফেরার সময় সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে ৩ হাজার ১৭৮টি। আহত হয়েছেন ২ হাজার ৭৭ জন এবং নিহত হয়েছে ৬৮১ জন। এরমধ্যে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ১ হাজার ৬১৮টি দুর্ঘটনায় আহত ৯৬৮ এবং নিহত হয়েছেন ১৯০ জন। সড়ক দুর্ঘটনায় গড়ে প্রতিদিন মৃত্যু বরণ করেছেন ৫৬ এবং আহত হয়েছেন প্রতিদিন ২৬৪ জন।<br><br>মঙ্গলবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এসব তথ্য জানায় স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সেভ দ্য রোড।<br><br>‘সেভ দ্য রোড-এর অঙ্গীকার পথ দূর্ঘটনা থাকবে না আর’ শ্লোগান নিয়ে আকাশ-সড়ক-রেল ও নৌপথ দুর্ঘটনামুক্ত করার লক্ষ্যে দেশের একমাত্র স্বেচ্ছাসেবি সংগঠন সেভ দ্য রোড ২০০৭ থেকে কাজ করে যাওয়ার ধারাবাহিকতায় ২০২২ থেকে নিয়মিত মাসিক প্রতিবেদন দেয়ার পাশাপাশি ২ ঈদকে ঘিরে আগে ও পরে প্রতিবেদন দিচ্ছে সেভ দ্য রোড-এর গবেষণা সেল।<br><br>বিবৃতিতে জানানো হয়, বাংলাদেশের ২৮টি জাতীয় দৈনিক, বিভিন্ন সংবাদ সংস্থা ও ইলেকট্রনিক্স চ্যানেলে প্রকাশিত-প্রচারিত তথ্যর পাশাপাশি সারাদেশে সেভ দ্য রোড-এর স্বেচ্ছাসেবিদের তথ্যানুসারে ২০২২ সালের ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ২৮ এপ্রিল থেকে ঈদযাত্রা ও ৪ মে থেকে ১০ মে পর্যন্ত ঈদফেরার সড়কপথে প্রায় ২৬ লাখ মোটর সাইকেল চালানোর সময় নিয়ম না মানা এবং হেলমেট ব্যবহারে অনীহার কারণে ১ হাজার ৬১৮টি দুর্ঘটনায় আহত ৯৬৮ এবং নিহত হয়েছেন ১৯০ জন।<br><br>এছাড়াও অসাবধানতা ও ঘুমন্ত চোখে-ক্লান্তিসহ দ্রুত চালানোর কারণে ৪০৭টি ট্রাক দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন ৩২১ এবং নিহত হয়েছে ১৬৮ জন, খানা খন্দক, অচল রাস্তা-ঘাট আর সড়কপথ নৈরাজ্যের কারণে ৪৬৭টি বাস দুর্ঘটনায় আহত হয়েছে ৩১০ এবং নিহত হয়েছে ১৫৪ জন, পাড়া-মহল্লা-মহাসড়কে অসাবধানতার সাথে চলাচলের কারণে লড়ি-পিকআপ-নসিমন-করিমন-ব্যাটারি চালিত রিক্সা-সাইকেল ও সিএনজি দুর্ঘটনা ঘটেছে ৬৮৬ টি আহত হয়েছে ৪৭৮ জন এবং ১৬৯ জন নিহত হয়েছে।<br><br>সেভ দ্য রোড-এর চেয়ারম্যান জেড এম কামরুল আনাম, প্রতিষ্ঠাতা মোমিন মেহেদী, মহাসচিব শান্তা ফারজানা, ভাইস চেয়ারম্যান বিকাশ রায়, জিয়াউর রহমান জিয়া ও ঢাকা সাব এডিটরস কাউন্সিলের সহ-সভাপতি আনজুমান আরা শিল্পী, আইয়ুব রানাসহ অন্যান্যদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় ২০২২ সালের ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ২৮ এপ্রিল থেকে ঈদযাত্রা ও ৪ মে থেকে ১০ মে পর্যন্ত ঈদফেরার সড়কপথে দুর্ঘটনা ঘটেছে এই প্রতিবেদনে সবচেয়ে বেশি যে বিষয়টি আলোচ্য তা হলো- ঈদযাত্রাকে কেন্দ্র করে কৃতিম টিকেট সংকট তৈরি করে ২ থেকে ৩ গুণ ভাড়া বাড়ানোর অপচেষ্টা করে যাচ্ছে একটি কুচক্রি মহল।<br><br>আর এই মহলে সম্পৃক্ত সরকারি দলের নেতাকর্মীদের পাশাপাশি পুলিশ-প্রশাসনের একটি বড় অংশ। তারা ঈদযাত্র ও ফেরাকে কেন্দ্র করে ১০ হাজার কোটি টাকারও বেশি চাঁদাবাজি করে জনগণের ভোগান্তি তৈরি করলেও পুলিশ-প্রশাসন নিরব ভূমিকা পালন করেছে, যার উত্তরণে সেভ দ্য রোড প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি কামনা করছে। <br></body></HTML> 2022-05-10 23:04:39 1970-01-01 00:00:00 প্রাথমিক শিক্ষকরাও পাবেন ৩য় গ্রেড, থাকছে সহকারী প্রধান শিক্ষক পদ http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114571 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/10/1652202242_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/10/1652202242_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের পদোন্নতি বিধিমালার খসড়া চূড়ান্তকরণ শেষে তা মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হচ্ছে। এ খসড়া নীতিমালা অনুমোদন পেলে একজন শিক্ষক পদোন্নতির সর্বশেষ ধাপে যুগ্ম-সচিব মর্যাদার তৃতীয় গ্রেডে বেতন-ভাতা পাবেন। খসড়া প্রস্তাবে প্রাথমিকের সহকারী প্রধান শিক্ষক পদের বিধান রাখা হয়েছে। পাশাপাশি প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকদের বিভাগীয় ব্যবস্থায় ৮০ শতাংশ পদোন্নতির সুযোগ রয়েছে প্রস্তাবে।<br><br>প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই) থেকে জানা গেছে, প্রাথমিক শিক্ষকদের পদোন্নতির জট খুলতে নিয়োগ নীতিমালার খসড়া তৈরি করা হয়েছে। রোববার (৮ মে) এ খসড়ার সারাংশসহ মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হয়েছে।<br><br>এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আলমগীর মুহম্মদ মনসুরুল আলম মঙ্গলবার জাগো নিউজকে বলেন, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বিধিমালা প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। সেখান থেকে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হয়েছে। এই নীতিমালা অনুমোদন পেলে ৮০ শতাংশ সহকারী শিক্ষক ও প্রধান শিক্ষক প্রার্থীরা বিভাগীয় ব্যবস্থায় পদোন্নতির সুযোগ পাবেন। যোগ্য প্রার্থীরা বিভাগীয় ব্যবস্থার মাধ্যমে পদোন্নতি পাবেন। সর্বোচ্চ পদোন্নতি পাওয়া শিক্ষকরা যুগ্ম-সচিব পর্যায়ের তৃতীয় গ্রেডে বেতন-ভাতা পাবেন।<br><br>তিনি বলেন, মন্ত্রিপরিষদ থেকে অনুমোদনের পর সেটি বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনে (পিএসসি) পাঠানো হবে। পিএসসি থেকে একটি অবজারভেশন দেওয়া হয়। সে কারণে মন্ত্রিপরিষদের অনুমোদনের পর আবারও সেখানো পাঠানো হবে। তারা সেটি চূড়ান্ত করে দেওয়ার পর তা বাস্তবায়ন হবে।<br><br>সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বিদ্যমান নীতিমালা অনুযায়ী সহকারী শিক্ষকদের পদোন্নতির কিছু সুযোগ থাকলেও ঊর্ধ্বতন প্রধান শিক্ষক পদটি ব্লক পদ। সে কারণে প্রধান শিক্ষকের পদোন্নতি হয় না, আর তাই সহকারী শিক্ষকরা প্রধান শিক্ষক পদে পদোন্নতি পান না। এছাড়া জ্যেষ্ঠতা তালিকা তৈরি করতে না পারায় পদোন্নতি পান না শিক্ষকরা।<br><br>প্রস্তাবিত নীতিমালায় নির্দিষ্ট সময় শিক্ষকরা উচ্চতর পদ ও গ্রেডে পদোন্নতির সুযোগ রাখা হয়েছে। শিক্ষকরা উপজেলা বা থানা রিসোর্স সেন্টারে দশম গ্রেড পদোন্নতি পাবেন নতুন নীতিমালা অনুযায়ী। একজন শিক্ষক পদোন্নতি পেয়ে সর্বোচ্চ তৃতীয় গ্রেডে বেতন-ভাতা পাবেন। প্রসঙ্গত, তৃতীয় গ্রেড প্রশাসনের যুগ্ম-সচিব পদমর্যাদার গ্রেড।<br><br>জানা গেছে, এ নিয়োগ বিধিমালায় বিভাগীয় প্রার্থী হিসেবে ৮০ শতাংশ পদোন্নতি যেন পায় সে সুযোগ রাখা হয়েছে। সরকার নীতিগতভাবে তাতে সম্মত হয়েছে। নিয়োগবিধি পাস হয়ে গেলে ৮০ শতাংশ বিভাগীয় প্রার্থী হিসেবে পদোন্নতি পাবেন। এছাড়া উপজেলা রিসোর্স সেন্টার ও থানা রিসোর্স সেন্টারে দশম গ্রেডে পদ রয়েছে, সেই পদে তারা ৮০ শতাংশ পদোন্নতি পাবেন। সহকারী প্রধান শিক্ষকের পদ রাখা হয়েছে।<br><br>পরবর্তী নিয়োগের সময় থানা, উপজেলা, জেলা ও জাতীয় মেধাতালিকা তৈরি করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আলমগীর মুহম্মদ মনসুরুল আলম।</body></HTML> 2022-05-10 23:03:35 1970-01-01 00:00:00 চট্টগ্রামে গোডাউনে মিলল ১ হাজার ৫০ লিটার তেল http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114570 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/08/1652028505_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/08/1652028505_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">নগরের চৌমুহনীতে সিডিএ কর্ণফুলী মার্কেটের একটি গুদাম থেকে ১ হাজার ৫০ লিটার সয়াবিন তেল জব্দ করেছে জাতীয় ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদপ্তর। অবৈধভাবে মজুদ করে বাজারে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির অপরাধে খাজা স্টোর নামে ওই দোকানের মালিককে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।<br><br>রোববার জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. আনিছুর রহমান এ অভিযান পরিচালনা করেন।<br><br>তিনি বলেন, তেল নিয়ে যে সংকট তৈরি হয়েছে তা খতিয়ে দেখতে বহদ্দারহাট ও চৌমুহনী এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন তারা। বহদ্দারহাটে তেলের ডিলাররা কোন কারসাজি করছেন কি না, তা খতিয়ে দেখেছেন। সেখানে তারা কোনো অনিয়ম পায়নি।<br><br>তিনি আরও বলেন, চৌমুহনী এলাকায় কর্ণফুলী মার্কেটে ভোজ্যতেলের দোকানগুলোতে অভিযান পরিচালনার সময় মেসার্স খাজা স্টোরের গোডাউনে ১ হাজার ৫০ লিটারের বেশি মজুতকৃত তেলের অস্তিত্ব পাওয়া যায়। এ সময় তেলগুলো তাৎক্ষণিক আশপাশের দোকানে বিক্রির ব্যবস্থা করা হয়েছে। পাশাপাশি তেল মজুত করার অপরাধে ভোক্তা অধিকার আইন মোতাবেক প্রতিষ্ঠানটিকে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।<br><br>এদিকে, গতকাল শনিবার রাতে ফটিকছড়ি উপজেলায় এক দোকানির বাড়িতে ২ হাজার ৩২৮ লিটার সয়াবিন তেল মজুদ করার প্রমাণ পেয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ ঘটনায় ওই দোকানিকে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।<br><br>ফটিকছড়ি উপজেলার ভূজপুর থানাধীন বাগানবাজার ইউনিয়নের দক্ষিণ গজারিয়া গ্রামে আক্তার হোসেন নামে এক দোকানির বাড়িতে তেল মজুদের গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এ অভিযান চালানো হয়। এসময় মজুত করে রাখা ২ হাজার ৩২৮ লিটার সয়াবিন তেল পাওয়া যায়। <br><br><br><br><br><br><br></body></HTML> 2022-05-08 22:48:03 1970-01-01 00:00:00 সুপারিশের ভিত্তিতে ট্রেনে সুবিধা পাবে না কেউ http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114569 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/08/1652028467_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/08/1652028467_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">রেলমন্ত্রীর একান্ত সচিব, সহকারী একান্ত সচিব ও ব্যক্তিগত কর্মকর্তাদের নিকট আত্মীয় ও রেলওয়ের বিভিন্ন প্রকল্প পরিচালকদের পরিচয় দিয়ে কোনো ধরনের সুযোগ-সুবিধা পাওয়া যাবে না বলে নির্দেশনা দিয়েছে রেল মন্ত্রণালয়।<br><br>রোববার রেলমন্ত্রীর একান্ত সচিব (যুগ্মসচিব) মোহাম্মদ আতিকুর রহমানের স্বাক্ষরিত অফিস আদেশে বলা হয়, সম্প্রতি দেখা যাচ্ছে রেলমন্ত্রীর একান্ত সচিব, সহকারী একান্ত সচিব ও ব্যক্তিগত কর্মকর্তাদের অগোচরে তাদের রেফারেন্সে আত্মীয়, পরিবারের সদস্য, বন্ধু-বান্ধব পরিচয় উল্লেখ করে অনেকে বিভিন্ন রেলস্টেশনে টিকিট দাবিসহ ট্রেনে উঠে বিশেষ সুবিধা দাবি করছেন।<br><br>এছাড়া অনেকেই মন্ত্রীর একান্ত সচিব, সহকারী একান্ত সচিব ও ব্যক্তিগত কর্মকর্তাদের নিকট আত্মীয় পরিচয়ে বাংলাদেশ রেলওয়ের বিভিন্ন প্রকল্প পরিচালকদের কাছে বিভিন্ন প্রকার অবৈধ সুযোগ-সুবিধার জন্য মোবাইলে যোগাযোগ করছেন।<br><br>বিষয়টি মন্ত্রীকে অবহিত করা হলে তিনি তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য নির্দেশনা প্রদান করার পাশাপাশি মোবাইল নম্বরগুলো আইন প্রয়োগকারী সংস্থার নিকট প্রেরণ করে তাদের সঠিক পরিচয় জানার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন।<br><br>এছাড়া, এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট সব কর্মকর্তা-কর্মচারীকে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য এবং দাপ্তরিক প্রক্রিয়া অনুসরণ না করে কোনো কার্যক্রম গ্রহণ না করার জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।<br><br>রেলমন্ত্রীর একান্ত সচিব, ব্যক্তিগত কর্মকর্তা ও প্রকল্প পরিচালকদের থেকে সুবিধা নেয়ার প্রচেষ্টা করা হলেও তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশনা প্রদান করা হলেও আদেশে মন্ত্রীর রেফারেন্সে কেউ এ ধরনের সুবিধা পাবেন কিনা, সে ধরনের কোনো বার্তা দেয়া হয়নি।</body></HTML> 2022-05-08 22:47:29 1970-01-01 00:00:00 ঋণ পরিশোধে শ্রীলঙ্কাকে আরও এক বছর সময় দিলো বাংলাদেশ http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114568 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/08/1652028384_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/08/1652028384_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">চরম সংকটে থাকা শ্রীলঙ্কাকে দেওয়া ২০ কোটি ডলার ঋণ ফেরতের সম্ভাবনা কম। এ পরিস্থিতিতে ওই ঋণ পরিশোধে আরও এক বছর সময় বৃদ্ধি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। রোববার (৮ মে) বাংলাদেশ ব্যাংকের পর্ষদ সভায় এই সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় বলে বৈঠকে উপস্থিত এক কর্মকর্তা নিশ্চিত করেছেন।<br><br>একই বৈঠকে আইনি সীমার অতিরিক্ত ঋণ দেওয়ায় বেসরকারি ইস্টার্ন ব্যাংককে (ইবিএল) করা জরিমানা মওকুফের আবেদন নাকচ করে দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।<br><br>গভর্নর ফজলে কবিরের সভাপতিত্বে সভায় বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালক, ডেপুটি গভর্নর ও সংশ্লিষ্ট বিভাগের নির্বাহী পরিচালকরা উপস্থিত ছিলেন।<br><br>বৈঠকে উপস্থিত থাকা কেন্দ্রীয় ব্যাংকের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, শ্রীলঙ্কাকে দেওয়া ২০ কোটি ডলার ঋণ ফেরতের জন্য তাদের চাপাচাপি করে কোনো লাভ হবে না। এ ঋণ পরিশোধে আরও এক টেনিয়র (বছর) সময় বৃদ্ধি করা হয়েছে। এ সিদ্ধান্তের কারণে বাংলাদেশ থেকে নেওয়া ২০ কোটি ডলার ঋণ পরিশোধে আরও এক বছর সময় পাবে দেশটি।<br><br>বাংলাদেশ ব্যাংক এবং সেন্ট্রাল ব্যাংক অব শ্রীলঙ্কার মধ্যে দ্বিপক্ষীয় (দেশটির সরকারের গ্যারান্টি) কারেন্সি সোয়াপ চুক্তির আওতায় দেশটির অনুকূলে তিন দফায় ২০ কোটি ডলার ছাড় করা হয়েছে। তিন মাস মেয়াদি কারেন্সি সোয়াপ হলেও এক বছর পর্যন্ত বাড়ানোর সুযোগ রয়েছে চুক্তিতে। এর ফলে তিন মাস পরপর এক বছর পর্যন্ত এ ঋণের মেয়াদ এমনিতেই বাড়বে। তবে লন্ডন আন্তঃব্যাংক অফার রেট বা লাইবরের সঙ্গে দেড় শতাংশ সুদ পাবে বাংলাদেশ। অর্থ ছাড়ের পর থেকে এর সুদহার ও ঋণ পরিশোধের সময় হিসাব করা হবে।<br><br>এর আগে প্রথম দফায় ২০২১ সালের ১৯ আগস্ট ৫ কোটি ডলার ছাড় করে বাংলাদেশ ব্যাংক। একই বছরের ৩০ অক্টোবরে দ্বিতীয় দফায় ১০ কোটি ডলার দেওয়া হয় এবং গত নভেম্বরে বাকি ৫ কোটি ডলার দেওয়া হয় শ্রীলঙ্কাকে। দেশটিকে দেওয়া ঋণের পরিমাণ ২০ কোটি ডলার বা বাংলাদেশি মুদ্রায় এক হাজার ৭২৪ কোটি টাকা। যে দিন থেকে যে অর্থ ছাড় করা হয়েছে, সে দিন থেকে মেয়াদ হিসাব করা হবে। ফলে বিদ্যমান চুক্তির আওতায় চলতি ২০২২ সালের আগস্ট, অক্টোবর ও নভেম্বরের মধ্যে সুদসহ অর্থ ফেরত দিতে হবে দেশটিকে। তবে নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগের সময়ের সঙ্গে এখন আরও এক বছর যুক্ত হবে।<br><br>এদিকে সীমার অতিরিক্ত ঋণ দেওয়ায় বাংলাদেশ ব্যাংক ইস্টার্ণ ব্যাংককে গত ৩ এপ্রিল পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা করেছিল। জরিমানার ওই অর্থ ১৪ দিনের মধ্যে জমা দিতে বলা হয়েছিল। পরিশোধ না হলে ব্যাংকটির হিসাব থেকে কেটে নেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংকের চিঠিতে। তবে তারা জরিমানার অর্থ পরিশোধ না করে তা মওকুফের আবেদন করে। আজকের বৈঠকে আবেদনটি বাতিল করা হয়।</body></HTML> 2022-05-08 22:45:48 1970-01-01 00:00:00 নাটোরে দুই বাসের সংঘর্ষে নিহত বেড়ে ৭ http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114567 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651941262_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651941262_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলায় দুই বাসের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে প্রাণ হারিয়েছেন সাতজন। একইসাথে আহত হয়েছেন অন্তত ৩৫ জন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বনপাড়া হাইওয়ে পুলিশের ওসি শফিকুল ইসলাম।<br><br>তিনি জানান, বড়াইগ্রাম উপজেলার মহিষভাঙা এলাকার বনপাড়া-হাটিকুমড়ুল সড়কে শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। হতাহতরা সবাই বাসের যাত্রী।<br><br>নিহতরা হলেন লালপুরে মোহনা আক্তার মিলি(২৩), নাটোর সদরের সাদিয়া(১২), টাঙ্গাইল দেলদুয়ার উপজেলার জলিল(২৫), নাটোর সদরের কাউসার(২৫), চাপাইনবাগঞ্জের মশিউর রহমান(৩০), মাগুড়া জেলার মিজানুর রহমান,নাটোর সদরের আলমগীর হোসেন(৪৮)। অপর একজন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন, তার পরিচয় জানা যায়নি।<br><br>ওসি বলেন, সিয়াম পরিবহনের একটি বাস ঢাকা থেকে রাজশাহীর দিকে যাচ্ছিলো। পথে দাঁড়িয়ে থাকা একটি ট্রাককে পাশ কাটাতে গিয়ে বিপরীতমুখী ন্যাশনাল এন্টারপ্রাইজের একটি বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এ সময় ন্যাশনাল এন্টারপ্রাইজের বাসটি ছিটকে গিয়ে ট্রাকের সঙ্গে ধাক্কা খায়।<br><br>এতে ঘটনাস্থলেই ছয়জনের মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস হতাহতদের উদ্ধার করে। আহত বা নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।<br><br><br><br><br></body></HTML> 2022-05-07 22:33:57 1970-01-01 00:00:00 পা কেটে হাসপাতালে, ২৭টি সেলাই দিতে হলো মাশরাফিকে http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114566 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651941213_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651941213_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">বিপদ কখনো বলে কয়ে আসে না। তেমনটাই ঘটলো জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার ক্ষেত্রে। কাচের টেবিলের সঙ্গে ধাক্কা লেগে কেটে গেছে পা।<br><br>রক্তক্ষরণ শুরু হলে দ্রুত হাসপাতালে ভর্তি করতে হয় মাশরাফিকে। সেখানে তার পায়ে দিতে হয়েছে ২৭টি সেলাই। বর্তমানে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে পর্যবেক্ষণে রয়েছেন তিনি।<br><br>জানা গেছে, নিজের বাসায় অবস্থানকালে একটি কাচের টেবিলে ধাক্কা লাগে মাশরাফির। এ সময় কাচ ভেঙে পায়ের পেছনের অংশে পড়ে গুরুতর আঘাত পান তিনি। পায়ের পেছনের দিকে অনেক বেশি কেটে যায় তার।<br><br>পরিবারের সদস্যরা দ্রুত মাশরাফিকে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে নিয়ে গেলে, তার পায়ে ২৭টি সেলাই দেন চিকিৎসকরা। বর্তমানে মাশরাফি ওই হাসপাতালেই নিবিড় পর্যবেক্ষণে রেখেছেন চিকিৎসকরা।<br><br>মাশরাফির পারিবারিক সূত্র মিডিয়াকে জানায়, ‘বাসায় কাচের টেবিলের সঙ্গে তার ধাক্কা লাগে। কাচ ভেঙে পায়ের পেছনের অংশে গুরুতর জখম হয়। এখন তিনি এভারকেয়ারে ভর্তি আছেন। পায়ে আঘাত পাওয়া জায়গায় ২৭টি সেলাই লেগেছে। দ্রুত সুস্থতার জন্য মাশরাফি দোয়া চেয়েছেন সবার কাছে।’<br><br>সদ্য সমাপ্ত ঢাকা প্রিমিয়ার লিগেও খেলেছেন মাশরাফি। লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ দলটিকে নেতৃত্বও দিয়েছেন তিনি। তার অধীনে রূপগঞ্জ ছিল শিরোপা দৌড়ে। শেষ পর্যন্ত চ্যাম্পিয়ন হতে না পারলেও রানারআপ হয়েছে তারা। শিরোপা জেতা শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের চেয়ে মাত্র ২ পয়েন্ট পিছিয়ে ছিল দলটি।<br><br><br><br><br></body></HTML> 2022-05-07 22:33:03 1970-01-01 00:00:00 করোনায় মৃত্যু নিয়ে ডব্লিউএইচওর তথ্যে একমত নন স্বাস্থ্যমন্ত্রী http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114565 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651941161_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651941161_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস মহামারিতে মৃত্যু সরকারি তথ্যের পাঁচ গুণ বলে যে হিসাব বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) দিয়েছে, তাতে অমত জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।<br><br>গণমাধ্যমকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এ কথা বলেন তিনি।<br><br>জাহিদ মালেক বলেন, করোনায় সরাসরি যে মৃত্যু হয়েছে, তাতে আমাদের দেয়া তথ্য ঠিক আছে। আর করোনা ভাইরাসের কারণে চিকিৎসা অনেকে পায় নাই, বা চিকিৎসা নেয় নাই, হাসপাতালে যায় নাই, সে কারণে যে মৃত্যু ঘটেছে, সেটা তো সরাসরি করোনা ভাইরাসের কারণে মারা গেছে, তা না। ননকমিউনিকেবল ডিজিজে মৃত্যু বাড়তে পারে।<br><br>এসময় এই সংক্রান্ত পূর্ণাঙ্গ তথ্য সরকারের কাছে নেই বলে জানান তিনি।<br><br>তিনি বলেন, ডব্লিউএইচওর প্রতিবেদনের প্রতিক্রিয়া আমরা দেব। এর এক্সপ্লানেশন আমাদের কাছ থেকে যেটা দেয়া দরকার, দেশবাসীর কাছে বিষয়টি পরিষ্কার করার জন্য আমরা তা দেব। কিন্তু এটুকু পরিষ্কার, করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়ার যে ফিগার আমরা দেখিয়েছি, তা ঠিক আছে।<br><br>উল্লেখ্য, করোনা মহামারিতে গত দুই বছরে বাংলাদেশে সরকারি হিসেবে মৃত্যু ২৯ হাজার ১২৭ জন। প্রকৃত সংখ্যাটি এর ৫ গুণ বেশি বলে ডব্লিউএইচওর সর্বসাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে ধারণা দেয়া হয়েছে।<br><br>একটি দেশে বছরে গড়ে কত সংখ্যক মানুষ মারা যায়, সেই সংখ্যার অতিরিক্ত সংখ্যাটা বের করে এই প্রতিবেদন প্রকাশ করে ডব্লিউএইচও।<br><br>ডব্লিউএইচওর এই প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাংলাদেশে মহামারি শুরুর বছর ২০২০ সাল শেষে অতিরিক্ত মৃত্যু হয়েছিল ৪৬ হাজার ৪১ জন মানুষের। আর ২০২১ সালের ডিসেম্বর নাগাদ বাংলাদেশে অতিরিক্ত মৃত্যুর সংখ্যা ১ লাখ ৪০ হাজার ৭৬৪ জন।<br><br><br><br><br></body></HTML> 2022-05-07 22:32:27 1970-01-01 00:00:00 আত্মগোপনে যাওয়ার পাঁচ মাস পর কিশোর উদ্ধার http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114564 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651941130_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651941130_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">ফ্রি-ফায়ার, পাবজি গেমে আসক্তির কারণে বাবা-মায়ের কড়া শাসনে অভিমান করে বাসা থেকে বেরিয়ে আত্মগোপনে চলে যায় কিশোর অভিক দে (১৫)। দীর্ঘ ৫ মাস পর আত্মগোপনে থাকা সেই কিশোরকে চান্দগাঁও থেকে উদ্ধার করেছে র‍্যাব।<br><br>বুধবার চট্টগ্রাম নগরের চান্দগাঁও র‍্যাব কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানান র‍্যাব-৭ এর অধিনায়ক লেফট্যানেন্ট কর্নেল এমএ ইউসুফ।<br><br>র‍্যাব জানায়, গত বছরের ডিসেম্বর ১০ তারিখ দুপুর ২টার দিকে বাবা-মায়ের সঙ্গে অভিমান করে বাসায় মোবাইল ফেলে আত্মগোপনে চলে যায় কিশোর অভিক। দীর্ঘ সময় মোবাইল নিয়ে পাবজি গেম নিয়ে ব্যস্ত থাকার কারণে তার বাবা মা তাকে শাসন করতো। এক পর্যায়ে বাবা-মার কাছ থেকে ‘তোমার রোজগার তুমি করে খাও’—এমন কথা শোনার পর ওই কিশোর রাগ করে কাউকে কিছু না বলে বাসা থেকে বের হয়ে যায়।<br><br>নিখোঁজ হওয়ার পর আত্বীয়-স্বজনসহ বিভিন্ন জায়গায় ছেলেকে খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে ২০২১ সালের ১১ ডিসেম্বর চকবাজার থানায় তার মা বাদী হয়ে জিডি করেন। এরপরও তার কোন খোঁজ না পেয়ে ২৬ মার্চ ৩ জনকে আসামি করে চকবাজার থানায় মামলা করেন। পরবর্তীতে চকবাজার থানার মামলা ও জিডির কপিসহ র‍্যাবকে জানানো হয়। এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তারের জন্য গোয়েন্দা নজরদারি শুরু করলে শুক্রবার (৬ মে) রাত সাড়ে ১০টায় চান্দঁগাও থানা মোড় এলাকা থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়।<br><br>নিখোঁজ কিশোরের বরাতে র‍্যাব জানায়, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ওই কিশোর জানিয়েছে, ঘর থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর নাম বদলে অলংকার মোড়ের একটি রেস্টুরেন্টে চাকরি নেয়। এক মাস পর রেস্টুরেন্টে কর্মচারীর সঙ্গে রাগারাগি করে সেখান থেকে চলে আসে। পরে চান্দগাঁও নতুন থানার মোড় নিউ চান্দগাঁও রেস্ট হাউজে কাজ শুরু করে।<br><br>র‍্যাব-৭ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল এমএ ইউসুফ বলেন, প্রাপ্তবয়স্কদের একটি গ্রুপের সাথে অভিকের চলাফেরা ছিল। এ গ্রুপের সদস্যরা পরস্পর এডাল্ট ভিডিও শেয়ার করতো ও ইন্টারনেট পর্নোগ্রাফিতে আসক্ত ছিল। পাবজি খেলার পাশাপাশি অভিক এসবে আসক্ত হয়ে পড়ে। সে গোপনে বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায় একাধিক একাউন্ট চালাতো ও বেনামি ৫/৬টি সিম ব্যবহার করতো।<br><br>তিনি আরও বলেন, পড়াশুনা প্রায় ছেড়ে দিয়ে সারাদিন এসব নিয়ে পড়ে থাকতো বলে বাবা-মা কড়া শাসন শুরু করলে সে তার গ্রুপের অন্যান্য প্রাপ্তবয়স্কদের মতো 'স্বাধীনতা' ভোগ করতে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায়। তার হদিস যেন কেউ না পায় এজন্য ব্যবহৃত মোবাইলটি বাসায় রেখে যায়। পরে নয়ন দে ছদ্মনামে একটি ফেসবুক একাউন্ট খোলে। আত্মগোপন থাকাকালে সে নিজেকে নয়ন দে পরিচয় দেয় এবং একেক সময় একেক ঠিকানা ব্যবহার করে বিভিন্ন স্থানে অবস্থান করে। পরবর্তী আইনানুগ কার্যক্রমের জন্য উদ্ধার হওয়া কিশোরকে চকবাজার থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।<br><br><br><br><br></body></HTML> 2022-05-07 22:31:55 1970-01-01 00:00:00 জয়পুরহাটে তরুণীকে ধর্ষণের পর হত্যা http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114563 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651941092_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651941092_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে আয়েশা (২১) নামে এক তরুণীকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। শনিবার সকালে পাঁচবিবি উপজেলার মাঝিনা এলাকা থেকে ওই ছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়।<br><br>নিহত আয়েশা পাঁচবিবি উপজেলার মাঝিনা গ্রামের মোজ্জামেল হকের মেয়ে। সে জয়পুরহাট সরকারি কলেজের অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্রী ছিলেন বলে জানা গেছে।<br><br>পাঁচবিবি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) পলাশ চন্দ্র দেব জানান, আয়েশা পাঁচবিবি উপজেলার মাঝিনা গ্রামে তার ভাইয়ের বাড়িতে থাকতেন। গতকাল ভাই-ভাবি বাড়িতে ছিলেন না। এজন্য সে পাশের বাড়ির দুই কিশোরীকে নিয়ে আসেন বাড়িতে। পরে টিভি দেখে দুই কিশোরী এক রুমে এবং সে পাশের রুমে ঘুমাতে যান। শনিবার সকালে ওই দুই কিশোরী ঘুম থেকে উঠে বিবস্ত্র অবস্থায় আয়েশার মরদেহ দেখতে পায়। এসময় তারা চিৎকার করলে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে পুলিশকে খবর দেয়। পরে পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য আধুনিক জেলা হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।<br><br>ওসি আরও জানান, ধারণা করা হচ্ছে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে তাকে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।<br><br><br><br><br><br></body></HTML> 2022-05-07 22:31:04 1970-01-01 00:00:00 বনানীতে মার্কিন নাগরিকের ‘আত্মহত্যা’, স্ত্রীর বন্ধু গ্রেফতার http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114562 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651940922_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651940922_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">রাজধানীর বনানীতে গত ৩০ এপ্রিল শ্বশুরবাড়ি থেকে মার্কিন নাগরিক শেখ সোয়েব সাজ্জাদের (৪৪) মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তার স্বজনদের অভিযোগ, শ্বশুরবাড়ির অত্যাচার ও স্ত্রী সাবরিনার দেওয়া মানসিক নিপীড়ন সহ্য করতে না পেরে তিনি আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন।<br><br>এ ঘটনায় স্ত্রী সাবরিনা শারমিন (৩০) ও তার বন্ধু কাজী ফাহাদকে আসামি করে ক্যান্টনমেন্ট থানায় মামলা করেন সাজ্জাদের বড় ভাই শেখ সোহেল।<br><br>সাজ্জাদ বিশ্বের জনপ্রিয় ও সবচেয়ে বড় অনলাইন মার্কেটপ্লেস অ্যামাজনে চাকরি করতেন। গত ১৬ মার্চ তিনি ঢাকায় আসেন। ঢাকায় এসে তিনি স্ত্রী সাবরিনা শারমিনকে নিয়ে ওই বাড়ির তৃতীয় তলার একটি ফ্ল্যাটে থাকা শুরু করেন।<br><br>মামলার এজাহারে বলা হয়, ২০১৭ সালে সাবরিনা শারমিনের সঙ্গে সাজ্জাদের বিয়ে হয়। এরপর আমেরিকায় তারা বসবাস করছিলেন। ২০১৮ সালের মে মাসে সাজ্জাদকে রেখে সাবরিনা বাংলাদেশে চলে আসেন। এরপর রাজধানীর ওয়ারীর বাসায় থাকেন তারা। ওই বাসায় থাকাকালীন পাশের বাসার কাজী ফাহাদ নামে এক তরুণের সঙ্গে সম্পর্কে জড়ান সাবরিনা। ওই তরুণ নিয়মিত বাসায় আসতেন, যা পরিবারের অন্য সদস্যদের কাছে ধরা পড়ে। সাবরিনার বিবাহবহির্ভূত সম্পর্ক নিয়ে সাজ্জাদের সঙ্গে ফোনে প্রায়ই ঝগড়া হতো।<br><br>পারিবারিকভাবে ফাহাদকেও সতর্ক করা হয়। তারপরও তারা অনৈতিক সম্পর্ক অব্যাহত রাখে। বিভিন্ন অজুহাতে ফাহাদ সাবরিনার ফ্ল্যাটে আসতো। আমেরিকায় বসে এসব খবর শুনে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন সাজ্জাদ। প্রতিবেশী তরুণের সঙ্গে স্ত্রীর অনৈতিক সম্পর্কের কথা মহল্লায় ছড়িয়ে পড়লে তিনি সামাজিকভাবেও হেয় হন।<br><br>এজাহারে আরও বলা হয়, গত ১৬ মার্চ দেশে আসেন সাজ্জাদ। দেশে এসেই সাজ্জাদ তার স্ত্রী সাবরিনাকে নিয়ে শ্বশুর শাখাওয়াত হোসেনের বনানীর ডিওএইচএসের বাসায় বসবাস শুরু করেন। এসময় সাবরিনা সাজ্জাদের মোবাইল ফোন ও পাসপোর্ট সরিয়ে নিজের কাছে নিয়ে রাখেন। এতে সাজ্জাদ মানসিকভাবে চাপে পড়েন। সাবরিনা গত ১৫ এপ্রিল বাসা থেকে না বলে চলে যায়। এ সময় সে ফাহাদের সঙ্গে ছিল বলে অভিযোগ রয়েছে। সাবরিনাকে সাজ্জাদের মোবাইল ও পাসপোর্ট ফেরত দেওয়ার জন্য তার বাবাও মোবাইল ফোনে অনুরোধ করেন। তবে তিনি ফেরত দেননি। এভাবে মানসিকভাবে চাপে রাখায় সাজ্জাদ আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়েছেন।<br><br>সাজ্জাদের বড় ভাই শেখ সোহেল বলেন, ৩০ এপ্রিল গৃহপরিচারিকা ঘরের দরজা খুলে সাজ্জাদকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পান। পরে তিনি সাজ্জাদের পরিবার ও পুলিশকে খবর দেন। পুলিশ এসে নিহতের লাশ নামিয়ে সুরতহাল করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠান।<br><br>তিনি বলেন, সাবরিনা ও সাজ্জাদ দুজনেরই এটি দ্বিতীয় বিয়ে। প্রথম বিবাহবিচ্ছেদের পর তারা নিজেদের পছন্দে বিয়ে করেন। দশ বছর ধরে সাজ্জাদ আমেরিকায় রয়েছেন। সাবরিনা শিক্ষার্থী ভিসায় আমেরিকায় গেলেও তিনি ২০১৮ সালের মে মাসে ঢাকায় আসেন। এরপর আর আমেরিকায় যাননি। তার আগের সংসারে এক কন্যাসন্তান রয়েছে। গত ১৫ এপ্রিল বাসা থেকে বের হওয়ার পর এখনো তার খোঁজ পাওয়া যায়নি।<br><br>‘গ্রেফতার কাজী ফাহাদের বাড়ি কুমিল্লায়। সে আগে কলাবাগান থাকতো। সাবরিনার খালাতো ভাইয়ের পরিচয়ে আমাদের বাসায় আসতো, আমরা তাই মনে করতাম। একসময় দেখলাম ফাহাদ কলাবাগান থেকে শিফট হয়ে আমাদের পাশের বাসায় বাসা ভাড়া নেয়। তখন তার বাসায় আসা বেড়ে যায়। আমাদের বাড়ির পঞ্চম তলার ফ্ল্যাটে সাবরিনা তার আগের সংসারের মেয়ে নিয়ে একা থাকতো।<br><br>তবে সাবরিনার স্বজনরা জানিয়েছেন, সাবরিনার অভিযোগ ছিল সাজ্জাদ তাকে সময় দিতো না, বন্ধু-বান্ধবকে বেশি সময় দিতো। এ নিয়েও তাদের মধ্যে ঝগড়া হতো।<br><br>মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ক্যান্টনমেন্ট থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শ্যামল আহমেদ বলেন, আমরা আসামি কাজী ফাহাদকে গ্রেফতার করেছি। তবে এখনো পলাতক রয়েছে এক নম্বর আসামি সাবরিনা। তাকে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।<br><br>ক্যান্টনমেন্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী সাহান হক জাগো নিউজকে বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক শেখ শোয়েব সাজ্জাদ নিহতের ঘটনায় তার বড় ভাই শেখ সোহেল আত্মহত্যা প্ররোচনার অভিযোগে একটি মামলা করেছেন। মামলায় স্ত্রী সাবরিনা শারমিন ও তার বন্ধু কাজী ফাহাদ নামে এক তরুণকে আসামি করা হয়েছে। এরই মধ্যে কাজী ফাহাদকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাকে আদালতে সোপর্দ করলে আদালত জেল গেটে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।<br><br>তিনি বলেন, এক নম্বর আসামি সাবরিনা এখনো পলাতক। সাজ্জাদ আত্মহত্যা করেছে নাকি হত্যা তা ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পেলে জানা যাবে।</body></HTML> 2022-05-07 22:28:22 1970-01-01 00:00:00 চট্টগ্রাম বন্দরে জাহাজ জট http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114561 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651940873_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651940873_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">টানা আটদিন বন্ধ থাকার পর আজ শনিবার খুলেছে বেশিরভাগ শিল্প-কারখানা। এদিকে কারখানা বন্ধ থাকায় আমদানিকারকরা জাহাজ থেকে পণ্য খালাস বন্ধ রেখেছেন। এ কারণে চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে বাড়ছে পণ্যভর্তি কনটেইনারবাহী জাহাজের সংখ্যা। আমদানিকারকরা আন্তরিক হলে আগামী সপ্তাহের মধ্যে এই জট থাকবে না বলে দাবি করছে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ।<br><br>বন্দর সূত্রে জানা যায়, চট্টগ্রাম বন্দরে বিভিন্ন পোশাক কারখানার আমদানি করা ২০ জাহাজ ভর্তি পণ্যের একটিও খালাস হয়নি আজ। ফলে জাহাজগুলো সারিবদ্ধভাবে বন্দরের বহির্নোঙরে খালাসের অপেক্ষায় আছে।<br><br>পোশাক পণ্যের কাঁচামাল ছাড়াও ১০টি জেনারেল কার্গো, ক্লিংকার বোঝাই ২টি, চিনি বোঝাই ২টি ও তেল বোঝাই ৭টি জাহাজ খালাসের অপেক্ষায় আছে। চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে সবমিলিয়ে ৬৮টি পণ্যবোঝাই জাহাজ ছিল। এর মধ্যে ২৭টি জাহাজ খালাস করা হয়েছে। বাকি ৪১টি জাহাজ এখনো খালাসের অপেক্ষায় আছে।<br><br>শিপিং এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের পরিচালক খায়রুল আলম সুজন বলেন, কারখানা বন্ধ থাকায় প্রতি বছর ঈদের সময় বহির্নোঙরে জাহাজের সংখ্যা বাড়ে। আর জাহাজ আসাও তো বন্ধ রাখা যাবে না। আশা করছি, পণ্য আমদানিকারকরা দ্রুত খালাসের ব্যবস্থা করলে দু'সপ্তাহের মধ্যে স্বাভাবিক পরিস্থিতি তৈরি হবে।<br><br>চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সচিব মো. ওমর ফারুক জানান, কারখানাগুলো বন্ধ থাকায় বন্দরের বহির্নোঙরে জাহাজগুলো অপেক্ষায় আছে। জাহাজের সংখ্যা বাড়লেও এটা খুব সাময়িক। কারখানা খুললেই ব্যবসায়ীরা পণ্য নিয়ে যাবেন।<br><br>এদিকে বন্দরের বহির্নোঙরে আমদানিপণ্য বোঝাই ২০টি জাহাজ ছাড়াও লবণ, চিনি, তেল ও সারসহ বিভিন্ন পণ্যভর্তি আরও ২১টি জাহাজ বহির্নোঙর খালাসের অপেক্ষায় আছে। এতে করে বন্দরের বাইরে নোঙর করা জাহাজের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। আমদানিকরাকরা দ্রুত পণ্যের খালাসের ব্যবস্থা না করলে জাহাজজট হবে বলে মনে করছে বন্দর কর্তৃপক্ষ। তবে আগামীকাল রোববার থেকে পণ্য খালাসের কথা জানিয়েছে আমদানিকরাকরা।<br><br>বিজিএমইএর প্রথম সহ-সভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম বলেন, সবে মাত্র আজ পোশাক কারখানাগুলো খুলেছে। কারখানার শ্রমিকরা কাজে যোগ দিচ্ছেন। আগামীকাল থেকেই কারখানা মালিকরা আমদানি করা কাঁচামালগুলো খালাসের ব্যবস্থা করবেন। প্রতিবছরই ঈদের সময় এমন হয়। এটা স্বাভাবিক ব্যাপার। আশা করছি আগামী দু’সপ্তাহের মধ্যে সব জাহাজ খালি হয়ে যাবে।</body></HTML> 2022-05-07 22:27:23 1970-01-01 00:00:00 বিনা টিকিটে ট্রেনে ভ্রমণ করা যাত্রীরা আমার আত্মীয় নয়: রেলমন্ত্রী http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114560 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651940807_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651940807_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">রেলমন্ত্রীর আত্মীয় পরিচয় দিয়ে বিনা টিকিটে ট্রেনে ভ্রমণ করার অপরাধে তিন যাত্রীকে জরিমানা করায় টিটিইকে বরখাস্ত করা হয়। যা নিয়ে দেশে ব্যাপক সমালোচনা হচ্ছে।<br><br><div>এ ঘটনা ঘটার দীর্ঘসময় পর শনিবার এ বিষয়ে মুখ খুললেন রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন।</div><br>গণমাধ্যমকে তিনি জানান, বিনা টিকিটে ট্রেনে ভ্রমণ করা যাত্রীরা আমার আত্মীয় নয়। ওদের সঙ্গে আমার কোনো সম্পর্ক নেই। মন্ত্রীর নাম ভাঙিয়ে কেউ হয়তো সুবিধা নেয়ার চেষ্টা করেছে। ঘটনার সঙ্গে আমার কোনো সম্পর্ক নেই।<br><br>মন্ত্রী বলেন, রেলের অফিশিয়াল কার্যক্রমের সঙ্গে মন্ত্রীর কোনো সংযোগ নেই। ঘটনার সঙ্গে মন্ত্রীর কোনো আত্মীয় জড়িত নন। টিটিইর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার ব্যাপারে মন্ত্রী কিছুই জানতেন না।<br><br>মন্ত্রী আরও বলেন, আমরা রেলসেবা বাড়াতে কাজ করছি। বিনা টিকিটের যাত্রী যদি মন্ত্রীর আত্মীয়ও হয় তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না। একইভাবে কোনো রেল কর্মকর্তাও যদি যাত্রীদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করে তাকেও শাস্তি পেতে হবে। যাত্রীদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করার কারণে টিটিইর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। মন্ত্রীর আত্মীয়ের নাম জড়িয়ে যা প্রচার করা হচ্ছে তা মিথ্যা।<br><br>গত বৃহস্পতিবার রাতে (৫মে) পাবনার ঈশ্বরদী রেল জংশন থেকে টিকিট ছাড়া ট্রেনে ওঠেন ‘রেলপথমন্ত্রীর আত্মীয়’ পরিচয়দানকারী তিন যাত্রী। টিকিট না কাটলেও তারা রেলের এসি কেবিনের সিট দখল করেন। এতে রেলের ভ্রাম্যমাণ টিকিট পরীক্ষক (টিটিই) তাদের জরিমানা করেন। পরে ওই তিন যাত্রী তাদের সঙ্গে অসদাচরণ করা হয়েছে বলে রেলের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করেন।</body></HTML> 2022-05-07 22:23:32 1970-01-01 00:00:00 এপ্রিলে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা-মৃত্যু ঢাকায় http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114559 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651940581_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651940581_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">গত এপ্রিল মাসে সারাদেশে ৪২৭টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৫৪৩ জন নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে ৬৭ জন নারী ও ৮১ জন শিশু। আর এমাসে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি ঘটেছে ঢাকা বিভাগে। ঢাকায় মোট ১৩১ দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ১৫৬ জন। শুধুমাত্র রাজধানীতে ২২ দুর্ঘটনায় ২৪ জন নিহত হয়েছে।<br><br>দুর্ঘটনায় এপ্রিলে প্রতিদিন গড়ে নিহত হয়েছেন ১৮ জন। এর আগের মাস মার্চে প্রতিদিন গড় মৃত্যুর সংখ্যা ছিল ১৯ জন। এ হিসাবে মার্চের তুলনায় এপ্রিলে প্রাণহানি কমেছে ৪ দশমিক ৭৩ শতাংশ। তবে এটা উন্নতির কোনো টেকসই সূচক নির্দেশ করে না। দুর্ঘটনায় ৪৩১ জন ১৮-৬৫ বছর বয়সী কর্মক্ষম মানুষ নিহত হয়েছেন।<br><br>‘রোড সেফটি ফাউন্ডেশন’র এক প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে। এ সংস্থাটি দেশের সাতটি জাতীয় দৈনিক, পাঁচটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার তথ্যের ভিত্তিতে এ প্রতিবেদন করেছে।<br><br>শনিবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে প্রতিবেদনের তথ্য জানানো হয়।<br><br>প্রতিবেদনের তথ্যানুযায়ী, গত এপ্রিল মাসে দেশে সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে ৪২৭টি। এসব দুর্ঘটনায় নিহত ৫৪৩ জন এবং আহত ৬১২ জন। মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার পরই বেশি হতাহত হয়েছেন সাধারণ পথচারী। এপ্রিলে নিহতদের মধ্যে পথচারী ১১৬ জন, যা মোট নিহতের ২১ দশমিক ৩৬ শতাংশ। যানবাহনের চালক ও সহকারী নিহত হয়েছেন ৮৭ জন, যা মোট নিহতের ১৬ শতাংশ। এসময়ে ছয়টি নৌ-দুর্ঘটনায় আটজন নিহত হয়েছেন। নিখোঁজ হয়েছেন ছয়জন। রেলপথে দুর্ঘটনা ঘটেছে ২১টি। এতে মৃত্যু হয়েছে ২৩ জনের। আহত হয়েছেন অন্তত পাঁচজন।<br><br>এছাড়া সড়ক দুর্ঘটনায় বাসের যাত্রী নিহত হয়েছেন ১৩ জন, যা একমাসে মোট নিহতের ২ দশমিক ৩৯ শতাংশ। ট্রাক-পিকআপ-ট্রাক্টর-ট্রলি আরোহী নিহত হয়েছেন ৬৩ জন, যা মোট নিহতের ১১ দশমিক ৬০ শতাংশ। মাইক্রোবাস-প্রাইভেটকার-অ্যাম্বুলেন্স-পুলিশের গাড়ি দুর্ঘটনার কবলে পড়ে নিহত হয়েছেন ১৪ জন, যা মোট মৃত্যুর ২ দশমিক ৫৭ শতাংশ। ইজিবাইক-সিএনজি-অটোরিকশা-অটোভ্যান-মিশুক দুর্ঘটনায় মারা গেছেন ১০০ জন, যা মোট মৃত্যুর ১৮ দশমিক ৪১ শতাংশ।<br><br>নসিমন-ভটভটি-আলমসাধু-টমটমের ১৯ যাত্রী নিহত হয়েছেন, যা মোট মৃত্যুর ৩ দশমিক ৪৯ শতাংশ। এছাড়া বাইসাইকেল-প্যাডেল রিকশা-রিকশাভ্যানের ১২ জন আরোহী নিহত হয়েছেন, যা মোট মৃত্যুর ২ দশমিক ২০ শতাংশ।<br><br>রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের পর্যবেক্ষণ ও বিশ্লেষণ অনুযায়ী, দুর্ঘটনাগুলোর মধ্যে ১৮৭টি সংঘটিত হয়েছে জাতীয় মহাসড়কে, যা এপ্রিলের মোট দুর্ঘটনার ৪৩ দশমিক ৭৯ শতাংশ। আঞ্চলিক মহাসড়কে ঘটেছে ১২৩টি দুর্ঘটনা, যা মোট দুর্ঘটনার ২৮ দশমিক ৮০ শতাংশ। গ্রামীণ সড়কে দুর্ঘটনা ঘটেছে ৬৫টি, যা মোট দুর্ঘটনার ১৫ দশমিক ৪২ শতাংশ, শহরের সড়কে দুর্ঘটনা ঘটেছে ৪৬টি, যা মোট দুর্ঘটনার ১০ দশমিক ৭৭ শতাংশ। আর অন্যান্য স্থানে ছয়টি দুর্ঘটনা ঘটেছে, যা আলোচিত মাসের মোট দুর্ঘটনার ১ দশমিক ৪০ শতাংশ।<br><br>এসব দুর্ঘটনা ৮৪টি মুখোমুখি সংঘর্ষ, ১৬৭টি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে, ১১৩টি পথচারীকে চাপা বা ধাক্কা দেওয়া, ৫২টি যানবাহনের পেছন থেকে ধাক্কা দেওয়া এবং ১১টি অন্যান্য কারণে সংঘটিত হয়েছে।<br><br>দুর্ঘটনায় সম্পৃক্ত যানবাহনের সংখ্যা ৭৫৭টি। এরমধ্যে ট্রাক ১৪৪, বাস ৭৯, কাভার্ডভ্যান ২৬, পিকআপ ৫৮, ট্রলি ৯, লরি ১০, ট্রাক্টর ১৭, তেলবাহী ট্যাঙ্কার তিনটি, গ্যাস সিলিন্ডারবাহী ট্যাঙ্কার একটি, ডিএনসিসির ময়লাবাহী ট্রাক একটি, ড্রাম ট্রাক সাতটি, মাইক্রোবাস ১৭, প্রাইভেটকার ১৪, অ্যাম্বুলেন্স তিনটি, পুলিশ জিপ একটি, মোটরসাইকেল ১৯৭, থ্রি-হুইলার ১১৬। এছাড়া স্থানীয়ভাবে তৈরি যানবাহন ৪৩ এবং বাইসাইকেল-প্যাডেল রিকশা-রিকশাভ্যান ১১ টি।<br><br>বিভাগওয়ারী পরিসংখ্যান অনুযায়ী, এপ্রিলে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি হয়েছে ঢাকা বিভাগে। এ মাসে সংঘটিত মোট দুর্ঘটনার ৩০ দশমিক ৬৭ শতাংশ ঢাকা বিভাগে। এপ্রিলে সড়কে প্রাণহানির ২৮ দশমিক ৭২ শতাংশ ঢাকায়। মোট দুর্ঘটনার ১২ দশমিক ৪১ শতাংশ রাজশাহী বিভাগে। এছাড়া চট্টগ্রামে ২৪ দশমিক ১২ শতাংশ, খুলনায় ১০ দশমিক ৭৭ শতাংশ, বরিশালে ৫ দশমিক ৩৮ শতাংশ, সিলেটে ৪ দশমিক ৪৪ শতাংশ, রংপুরে ৬ দশমিক ৩২ শতাংশ এবং ময়মনসিংহে ৫ দশমিক ৮৫ শতাংশ।<br><br>সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি শিক্ষার্থী। এপ্রিলে সড়কে প্রাণ ঝরেছে ৬৩ জন শিক্ষার্থীর। এছাড়া রাজনৈতিক নেতা ১২ জন, ব্যবসায়ী ৩১ জন, শিক্ষক ১৩ জন, পুলিশ সদস্য চারজন, সেনাসদস্য একজন, র‌্যাব সদস্য একজন, বিজিবি সদস্য একজন, গোয়েন্দা সংস্থার সদস্য দুজন, ফায়ার সার্ভিসের সদস্য একজন, চিকিৎসক দুজন, সাংবাদিক তিনজন, আইনজীবী চারজন, প্রকৌশলী দুজন, সংগীত শিল্পী একজন, ব্যাংক কর্মকর্তা ৯ জন, এনজিও কর্মকর্তা ১১ জন, ওষুধ ও বিভিন্ন পণ্যসামগ্রী বিক্রয় প্রতিনিধি ১৯ জন, পোশাকশ্রমিক সাতজন, চালকল শ্রমিক দুজন, ইটভাটা শ্রমিক চারজন, ধানকাটা শ্রমিক ছয়জন, মাটিকাটা শ্রমিক চারজন।<br><br>যেসব কারণে দুর্ঘটনা<br><br>সংস্থাটি বলছে ত্রুটিপূর্ণ যানবাহন, বেপরোয়া গতি, চালকদের বেপরোয়া মানসিকতা, অদক্ষতা ও শারীরিক-মানসিক অসুস্থতার কারণে সড়কে বেশি দুর্ঘটনা ঘটছে। এছাড়া বেতন ও কর্মঘণ্টা নির্দিষ্ট না থাকা, মহাসড়কে স্বল্পগতির যানবাহন চলাচল, তরুণ ও যুবদের বেপরোয়া মোটরসাইকেল চালানো, জনসাধারণের মধ্যে ট্রাফিক আইন না জানা ও না মানার প্রবণতা, দুর্বল ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা, বিআরটিএ’র সক্ষমতার ঘাটতি, গণপরিবহন খাতে চাঁদাবাজি সড়ক দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ।</body></HTML> 2022-05-07 22:22:34 1970-01-01 00:00:00 করোনায় মৃত্যু নেই, কমেছে শনাক্ত http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114558 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651940488_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651940488_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">গত একদিনে সারাদেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কারও মৃত্যু হয়নি। মোট মৃত্যুর সংখ্যা ২৯ হাজার ১২৭ জন অপরিবর্তিত আছে।<br><br>এছাড়া গত একদিনে ১০ জনের দেহে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়ালো ১৯ লাখ ৫২ হাজার ৭৭৬ জনে। এর আগের দিন শুক্রবার করোনা শনাক্ত হয়েছিল ১৯ জনের জনের।<br><br>শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।<br><br>গত একদিনে ২ হাজার ৬৩৯টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ২ হাজার ৬৫৬টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৩৮ শতাংশ। আগের দিন ছিল শূন্য দশমিক ৫৫ শতাংশ। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৯৪ শতাংশ।<br><br>স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত একদিনে করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ২১৭ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৮ লাখ ৯৭ হাজার ২৬৩ জন।<br><br>উল্লেখ্য, ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম ৩ জনের দেহে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ওই বছরের ১৮ মার্চ দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।</body></HTML> 2022-05-07 22:21:02 1970-01-01 00:00:00 জাতীয় প্রেসক্লাবে যা বললেন শিক্ষামন্ত্রী http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114557 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651940437_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651940437_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গত এক যুগে বাংলাদেশ বদলে গেছে। খাদ্য নিরাপত্তায়, নারী উন্নয়ন, কৃষি উন্নয়ন, প্রযুক্তিসহ নানা ক্ষেত্রে এ বাংলাদেশ আজ বিশ্বকে পথ দেখাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।<br><br>শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে লেখক মশিউর রহমানের ‘বাঙালির আশীর্বাদ বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনা’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন ও আলোচনা সভায় শিক্ষামন্ত্রী এ কথা বলেন।<br><br>শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ বিভিন্নভাবে বিশ্বকে পথ দেখাচ্ছে। তিনি যে পথ ধরে চলছেন এ পথ তার পিতার দেখানো পথ। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ সঠিক পথে আছে এবং সঠিক গন্তব্যে পৌঁছাবে ইনশাআল্লাহ ।<br><br>শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, শেখ হাসিনা যেন ৭ মে দেশে আসতে না পারে, সে জন্য নানান প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা হয়েছিল। দলীয় নেতাকর্মীরা যেন তাকে রিসিভ না করতে যান, সেজন্য কড়াভাবে নিষেধ করা হয়েছিল। এমনকি যে বিমানে আসবেন সেই বিমানকে লিখিতভাবে বলা হয়েছিল, শেখ হাসিনাকে যেন বহন না করা হয়।<br><br>‘বাঙালির আশীর্বাদ বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনা’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সাবেক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপার্চায অধ্যাপক ড. মশিউর রহমান, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হাসিবুর রহমান, বাংলাদেশ রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শাহ আজম শান্তনু প্রমুখ।</body></HTML> 2022-05-07 22:20:17 1970-01-01 00:00:00 জয়পুরহাটে তরুণীকে ধর্ষণের পর হত্যা http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114556 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651940370_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651940370_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">জয়পুরহাট প্রতিনিধি<br>জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে আয়েশা (২১) নামে এক তরুণীকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। শনিবার সকালে পাঁচবিবি উপজেলার মাঝিনা এলাকা থেকে ওই ছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়।<br><br><div>নিহত আয়েশা পাঁচবিবি উপজেলার মাঝিনা গ্রামের মোজ্জামেল হকের মেয়ে। সে জয়পুরহাট সরকারি কলেজের অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্রী ছিলেন বলে জানা গেছে।</div><br>পাঁচবিবি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) পলাশ চন্দ্র দেব জানান, আয়েশা পাঁচবিবি উপজেলার মাঝিনা গ্রামে তার ভাইয়ের বাড়িতে থাকতেন। গতকাল ভাই-ভাবি বাড়িতে ছিলেন না। এজন্য সে পাশের বাড়ির দুই কিশোরীকে নিয়ে আসেন বাড়িতে। পরে টিভি দেখে দুই কিশোরী এক রুমে এবং সে পাশের রুমে ঘুমাতে যান। শনিবার সকালে ওই দুই কিশোরী ঘুম থেকে উঠে বিবস্ত্র অবস্থায় আয়েশার মরদেহ দেখতে পায়। এসময় তারা চিৎকার করলে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে পুলিশকে খবর দেয়। পরে পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য আধুনিক জেলা হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।<br><br>ওসি আরও জানান, ধারণা করা হচ্ছে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে তাকে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।</body></HTML> 2022-05-07 22:18:56 1970-01-01 00:00:00 আ’লীগ সবসময় ভোটের মাধ্যমে ক্ষমতায় এসেছে: প্রধানমন্ত্রী http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114555 http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651940296_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/05/07/1651940296_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ মাটি ও মানুষের দল। আমরা সবসময় ভোটের মাধ্যমে ক্ষমতায় এসেছি। কখনো পেছনের দরজা দিয়ে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসেনি। নির্বাচনে প্রহসন ও ভোট কারচুপির কালচার (সংস্কৃতি) শুরু করেছে জিয়াউর রহমান।’<br><br>তিনি বলেন, ‘ভোটের রাজনীতিতে আওয়ামী লীগ কখনো পিছিয়ে ছিল না। সবসময় আওয়ামী লীগের ভোটের পারসেন্টেজ বেশি ছিল। ষড়যন্ত্র করে আওয়ামী লীগকে পিছিয়ে রাখা হয়েছে। সব ষড়যন্ত্রকে পেছনে ফেলে আমরা এগিয়েছি।’<br><br>প্রধানমন্ত্রী শনিবার (৭ মে) গণভবনে আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের সভার শুরুতে সূচনা বক্তব্যে এসব কথা বলেন। এর আগে বিকেল সাড়ে ৫টায় দলের সভাপতি শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে এ সভা শুরু হয়। করোনা টেস্টে নেগেটিভ রিপোর্ট আসা দলের কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্যরা এতে অংশ নিয়েছেন।<br><br>শেখ হাসিনা বলেন, ‘একটি গোষ্ঠী আওয়ামী লীগ সরকারকে উৎখাত করতে চায়। আমাদের অপরাধটা কী? আমরা কোথায় ব্যর্থ হয়েছি? জিয়া, এরশাদ, খালেদা, তারেক সবাই মানুষ হত্যা করেছেন। মানুষকে জীবন্ত পুড়িয়ে মেরেছেন।’<br><br>এবারের ঈদযাত্রা স্বস্তিদায়ক হওয়ায় সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে ধন্যবাদ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মানুষ এবার ঈদে নির্বিঘ্নে বাড়ি গেছে এবং ফিরছে। মানুষ গ্রামের বাড়ে গিয়ে ঈদ করেছে, উৎসব করেছে।’<br><br>তিনি আরও বলেন, ‘ঈদে আমাদের দেশের মানুষ শহর ছেড়ে গ্রামের বাড়িতে যায়। বিশ্বে অনেক দেশে এমন রীতি কমে গেছে। তবে শহরের মানুষ গ্রামে গেলে গ্রামেও অর্থ সরবরাহ বাড়ে। গ্রামের যাতায়াত ব্যবস্থা ভালো হচ্ছে। আমরা তৃণমূল থেকে উন্নয়ন করছি। গ্রামীণ অর্থনীতিও শক্তিশালী করছি।’<br><br>সরকারপ্রধান বলেন, ‘আমরা পরাধীনদের অনুসরণ করবো না। নিজস্বভাবে দেশের উন্নয়ন করবো। মাথা উঁচু করে চলবো।’<br><br>আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রসঙ্গে দলের সভাপতি বলেন, ‘আমরা নিয়মিত সম্মেলন করি। সময় এগিয়ে এসেছে। এর আগে আমরা কিছু কাজ করে থাকি। আগের ঘোষণাপত্রের অনেক কিছু বাস্তবায়ন করেছি।’</body></HTML> 2022-05-07 22:14:31 1970-01-01 00:00:00 হাজার কোটি টাকার অস্ত্র আনছে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114554 http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651303396_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651303396_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">বাংলাদেশের ভেতর রোহিঙ্গাদের নিয়ে আলাদা রাষ্ট্র গঠনের আকাশ-কুসুম পরিকল্পনা করছে ভয়ংকর রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী নবী হোসেন। পরিকল্পনা অনুযায়ী, রোহিঙ্গাদের জনসমর্থন আদায়ের লক্ষ্যে প্রথমে সে বাংলাদেশে জন্ম নেওয়া রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব দাবি করে আন্দোলন শুরু করবে। পরে সেই আন্দোলন থেকে ‘স্বাধীন রোহিঙ্গা রাষ্ট্র’ প্রতিষ্ঠার ডাক দেওয়া হবে।<br><br>তাকে এ কাজে সহযোগিতা করছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। এমনি ভয়ংকর তথ্য এসেছে রোহিঙ্গাদের মধ্য থেকেই। যাচাইয়ে নেমে এর সত্যতাও পেয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।<br><br>সূত্র বলছে, স্বপ্ন পূরণে নবী হোসেন এখানে অস্ত্রধারী শক্তিশালী বাহিনী তৈরি করছে। মজুত করছে বিপুল অস্ত্র। মজুত বাড়াতে সম্প্রতি হাজার কোটি টাকা মূল্যের বিশাল অস্ত্রের চালান আনার প্রক্রিয়া শেষ করেছে সে। তবে অনুসন্ধানে পাওয়া তথ্য বলছে, মিয়ানমার সেনাবাহিনীই নবী হোসেনের হাতে অস্ত্রের ওই চালান তুলে দিতে চায়। তার মাধ্যমে বাংলাদেশে নিজেদের পরিকল্পনা বাস্তবায়নের চেষ্টা চালাচ্ছে তারা।<br><br>আর এ কারণে নবীকে হন্যে হয়ে খুঁজছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও গোয়েন্দারা। তাকে ধরিয়ে দিতে সম্প্রতি পুরস্কারও ঘোষণা করা হয়েছে। সূত্র জানিয়েছে, প্রায় ২০ হাজার কোটি টাকার মালিক এই নবী হোসেন। মাদক ব্যবসাসহ নানা অপরাধমূলক কাজের মাধ্যমে এত অর্থের মালিক বনেছে সে। তার রয়েছে বেতনভুক্ত সশস্ত্র বাহিনী। রয়েছে রোহিঙ্গা ভাষায় বেশ কয়েকটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল ও ইউটিউব চ্যানেল।<br><br>এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে কক্সবাজার ৩৪ বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মেহেদী হোসাইন কবির যুগান্তরকে বলেন, নবী হোসেন দেশের জন্য হুমকি। তাকে ধরতে ৩৪ বিজিবির পক্ষ থেকে ১০ লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছে। তিনি বলেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পের আরেক ত্রাস মাস্টার মুন্না। সে নবী হোসেন বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড। দেশে ৫০ ভাগের বেশি মাদক তাদের হাত ধরে ঢুকছে। মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সঙ্গেও নবী হোসেনদের সুসম্পর্ক রয়েছে।<br><br>তদন্তে নেমে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে একটি গোয়েন্দা সংস্থা বলছে, পার্শ্ববর্তী একটি দেশের অস্ত্রের কালোবাজার থেকে কয়েক হাজার কোটি টাকার অত্যাধুনিক ও ভারী অস্ত্র কেনার জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ত্রাস নবী হোসেন। মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় থাইল্যান্ড থেকে মিয়ানমার হয়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এ অস্ত্রের চালান আনার চেষ্টা করা হচ্ছে। বিষয়টি জানতে পেরে অস্ত্র চালানের প্রবেশ ঠেকাতে সংস্থাটি তৎপরতা বাড়িয়েছে।<br><br>ওই গোয়েন্দা সংস্থার এক শীর্ষ কর্মকর্তা যুগান্তরকে বলেন, নবী হোসেন অস্ত্রের চালান বাবদ ইতোমধ্যে এক হাজার কোটি টাকা কালোবাজারি অস্ত্র ব্যবসায়ীদের কাছে দিয়েছে। তবে এখনো অস্ত্র আনতে পারেনি। মানব পাচার ও মাদকের জন্য পরিচিত মিয়ানমার ও থাইল্যান্ডের মোই নদী-মায়ে সোট এবং বার্মিজ শহর মায়াওয়াদ্দি হয়ে এ চালানটি আনার চেষ্টা করছে তারা। মিয়ানমার সেনাবাহিনী বা সরকার জড়িত না থাকলে এটি কখনো সম্ভব নয়।<br><br>নবী হোসেন অস্ত্র কেনার জন্য এত বিপুল অঙ্কের টাকা কোথায় পেল জানতে চাইলে ওই গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেন, দেশে বেশিরভাগ মাদকের চালান ঢুকছে নবী হোসেনের হাত ধরে। ইয়াবার পাশাপাশি ভয়ংকর মাদক আইসের নিয়ন্ত্রণও তার হাতে। এ ছাড়া আরও নানা অপরাধমূলক কাজের মাধ্যমে সে ১০ থেকে ২০ হাজার কোটি টাকার মালিক হয়েছে।<br><br>অনুসন্ধানে জানা যায়, দিনদুপুরে ডাকাতি, অপহরণ ও ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটিয়ে ২০১৮ সালে প্রথম আলোচনায় আসে নবী হোসেন। সে রোহিঙ্গাদের কাছে ‘মাস্টার নবী হোসেন’ বলেও পরিচিত। পুলিশের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯ সালে নবী হোসেন বাহিনীর হাতে ৫ শতাধিক অস্ত্র ছিল। এখন তা বেড়ে কয়েকগুণ হয়েছে। দেশীয় অস্ত্রগুলো পাহাড়ি এলাকায় নিজস্ব কারখানায় বানানো হয়েছে। পাশাপাশি মিয়ানমার থেকেও অস্ত্র এসেছে।<br><br>রোহিঙ্গাদের একটি সূত্র জানায়, বর্তমানে নবী হোসেনের অধীনে সহস্রাধিক প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সদস্য রয়েছে। তাদের ভিন্ন ভিন্ন দলে ভাগ করে পর্যায়ক্রমে অস্ত্র চালানোর প্রশিক্ষণ দিয়েছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী। এসব সদস্যদের প্রত্যেককে মাসে ১০ হাজার টাকা বেতন দেয় নবী হোসেন। এ ছাড়া নিয়মিত মাদক চালানের কমিশনও পায় বাহিনীর সদস্যরা।<br><br>জনপ্রিয় রোহিঙ্গা নেতা মাস্টার মুহিবুল্লাহ হত্যাকাণ্ডের পর আরাকানভিত্তিক সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আরসার বিরুদ্ধে ক্যাম্পে জনমত গড়ে উঠেছে। প্রশাসনের পাশাপাশি তাদের প্রতিরোধ করছে সাধারণ রোহিঙ্গারা। এতে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আরসার চেইন অফ কমান্ড ভেঙে পড়ে। এই সুযোগে ক্যাম্পে শক্তি বৃদ্ধি করে নবী হোসেন বাহিনী। রোহিঙ্গা ভাষায় বেশ কয়েকটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল ও ইউটিউব চ্যানেল চালু করে নানা কার্যক্রম প্রচার করে।<br><br>এরমধ্যে রয়েছে RRV News, RVR News, RRt News, Mayyu tv। রোহিঙ্গা ক্যাম্পের পাশাপাশি মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড, ও মিয়ানমার থেকেও এসব চ্যানেল পরিচালনা করা হয়। মিডিয়া টিমের দেখভালের দায়িত্বে রয়েছে মাস্টার মুন্নার দুই ভাই ইদ্রিস ওরফে জুবাইয়ের ও ওমর ফারুক।<br><br>নবী হোসেন বা মাস্টার মুন্নার বিরুদ্ধে কেউ কিছু বললে এসব চ্যানেলে আরসার তকমা লাগিয়ে সংবাদ পরিবেশন করা হয়। রোহিঙ্গা নেতারা বলছেন, আরসা যেমন রোহিঙ্গাদের জন্য হুমকি তেমনি নবী হোসেন ও মাস্টার মুন্না গ্রুপও রোহিঙ্গাদের পাশাপাশি পুরো অঞ্চলের জন্য হুমকি।<br><br>সূত্রমতে, নবী হোসেন কয়েক মাস ধরে মিয়ানমারের সীমান্তবর্তী তোতার দ্বীপে অবস্থান করছে। সেখান থেকে যখন-তখন মিয়ানমারে যাওয়া-আসা করতে পারে সে। নাফ নদীর ওই দ্বীপে দেশের কোনো আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এখনো পৌঁছাতে পারেনি। অন্যদিকে মাস্টার মুন্না দীর্ঘদিন ধরে রোহিঙ্গা ক্যাম্পেই রয়েছে বলে শোনা যায়। এরপরও সে ও তার সহযোগীরা ধরাছোঁয়ার বাইরে।<br><br>উখিয়া উপজেলার পালংখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিন চৌধুরী বলেন, রোহিঙ্গাদের হাতে ৩০ হাজারের বেশি অস্ত্র রয়েছে। রোহিঙ্গারা বিভিন্ন সময়ে আমাকে ও ইউনিয়নের বিভিন্ন জনকে হুমকি দিয়েছে। আমি মনে করি রোহিঙ্গাদের দেখভালে গঠিত প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অবহেলা ও যথাযথ তৎপরতা না থাকার কারণেই রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের তৎপরতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই ঢিলেমি বন্ধ করতে হবে।<br><br>এ বিষয়ে জানতে চাইলে ১৪-এপিবিএনের অধিনায়ক পুলিশ সুপার নাঈমুল হক যুগান্তরকে বলেন, মাস্টার মুন্না ক্যাম্পে আছে কিনা তার সঠিক তথ্য নেই। তবে নবী হোসেন ও মাস্টার মুন্না এবং তাদের সহযোগীদের ধরতে আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। যে কোনো সময় হয়তো সফলতা আসবে।<br><br>র‌্যাব-১৫ কক্সবাজারের অধিনায়ক লে. কর্নেল খায়রুল ইসলাম সরকার বলেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পের আইনশৃঙ্খলা দেখভাল করার জন্য সেখানে একটা আলাদা আইনশৃঙ্খলা বাহিনী রয়েছে। তাই শতভাগ নিশ্চিত হয়ে আমরা শুধু রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বড় অভিযানগুলো পরিচালনা করে থাকি।<br><br>তিনি বলেন, নবী হোসেন ও মাস্টার মুন্না যেহেতু বড় মাপের সন্ত্রাসী তাই তাদের ধরার জন্য আমাদের গোয়েন্দা তৎপরতা বৃদ্ধি করা হয়েছে।<br><br>নবী হোসেনের সহযোগী কারা : অনুসন্ধানে জানা গেছে, অংজউয়িং নামে মিয়ানমারে একজন পার্লামেন্ট মেম্বার রয়েছেন। তার আসল নাম জকির আহমেদ। তিনি আরাকান রাজ্যের নাকপ্পুরার মৃত নুরুল আলমের ছেলে। বর্তমানে থাকেন ইয়াঙ্গুনে। এমপি অংজউয়িং নবী হোসেনের ঘনিষ্ঠ আত্মীয় এবং সন্ত্রাসী মাস্টার মুন্নার আপন চাচা।<br><br>অংজউয়িংয়ের পরামর্শে মিয়ানমার সরকার ও সেনাবাহিনী নবী হোসেনদের সর্বোচ্চ সহযোগিতা করে থাকে। এরই অংশ হিসাবে মিয়ানমার বাংলাদেশ সীমান্তে গড়ে ওঠা অর্ধশতাধিক ইয়াবা ও আইসের কারখানার নিয়ন্ত্রণ ছেড়ে দেওয়া হয়েছে নবী হোসেন ও মাস্টার মুন্নার হাতে। বিনিময়ে বাংলাদেশে মিয়ানমার সরকারের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করছে তারা।<br><br>পরিকল্পনা বাস্তবায়নে এখন নবী হোসেনের হাতে হাজার কোটি টাকা মূল্যের বিশাল অস্ত্রের চালান তুলে দিতে চায় মিয়ানমার সেনাবাহিনী। এ ছাড়াও আমেরিকা প্রবাসী রোহিঙ্গা নেতা হাবিব উল্লাহ ও সৌদি প্রবাসী রোহিঙ্গা নেতা হাফেজ কবিরও নবী হোসেনদের পরিকল্পনায় জড়িত বলে তথ্য পাওয়া গেছে।<br><br>এসব বিষয়ে জানতে চাইলে বিজিবির সাবেক মহাপরিচালক ও নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল আ ল ম ফজলুর রহমান যুগান্তরকে বলেন, আমি প্রথম থেকে বলে এসেছি, পররাষ্ট্র নীতি ও কূটনৈতিকভাবে রোহিঙ্গা সংকট কখনো সমাধান করা সম্ভব নয়। তাই যদি হতো ১৯৭১ সালে যুদ্ধ না করে এ বাংলাদেশ স্বাধীন হতো। মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আমরা নাফ নদীতে যুদ্ধ করেছি, তাদের আমি ভালোভাবে চিনি।<br><br>তিনি বলেন, নবী হোসেন হয়তো রোহিঙ্গা বেশে এ দেশে আশ্রয় নিয়েছে। কিন্তু সে মিয়ানমার সরকার ও দেশটির সেনাবাহিনীর এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছে। আজকে হাজার কোটি টাকার অস্ত্র আনার চেষ্টাও মিয়ানমারের ষড়যন্ত্রের অংশ। যত দ্রুত সম্ভব রোহিঙ্গাদের জন্মনিয়ন্ত্রণ নিশ্চিত করতে হবে। না হয় রোহিঙ্গা সংকট আরও ভয়াবহ হবে।<br><br>এ বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন যুগান্তরকে বলেন, হাজার কোটি টাকার অস্ত্রের চালান আনার চেষ্টার বিষয়টা এখনো আমি জানি না। বিস্তারিত জেনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। দেশবিরোধী কার্যক্রমের সঙ্গে জড়িত থাকায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কর্মরত বেশ কয়েকটি এনজিওর কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।<br><br><br><br><br><br><br></body></HTML> 2022-04-30 13:22:29 1970-01-01 00:00:00 আড়াই বছর পর হারানো মোবাইল উদ্ধার করে ফিরিয়ে দিল পুলিশ http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114553 http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651303335_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651303335_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">নাটোরের বাগাতিপাড়ায় হারিয়ে যাওয়ার আড়াই বছর পর মোবাইল ফোন উদ্ধার করে মালিককে ফিরিয়ে দিয়েছে পুলিশ। প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে উদ্ধারের পর শুক্রবার রাতে ফোনের মালিকের হাতে এটি হস্তান্তর করা হয়েছে। <br><br>পুলিশ জানায়, উপজেলার চকতকিনগর গ্রামের রিয়াজুলের ইসলামের মেডিকেল কলেজে পড়ুয়া ছেলে একটি স্মার্ট ফোন হারিয়ে ফেলেন ২০১৯ সালের ২৭ ডিসেম্বর। ওই দিনই থানায় রিয়াজুল ইসলাম একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। এরপর ঘটনাটি তদন্তভার পান থানার এএসআই দুলাল হোসেন। <br><br>তদন্তকারী কর্মকর্তা দুলাল হোসেন ফোনের আইএমইআই নম্বরের সূত্র ধরে প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে সম্প্রতি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীর কাছে ফোনের সন্ধান পান। ফোনটি ওই ছাত্রী একজন অপরিচিত ব্যক্তির কাছ থেকে কম মুল্যে কিনেছিলেন। তিনি তার স্বামীর নামের রেজিস্ট্রেশনকৃত একটি সীমকার্ড তুলে ফোনটি ব্যবহার করছিলেন। <br><br>পরে পুলিশের চ্যালেঞ্জের মুখে পড়লে কুরিয়ারের মাধ্যমে ওই ছাত্রী বাগাতিপাড়া থানায় ফোনটি পাঠিয়ে দেয়। এরপর শুক্রবার ফোনটি রিয়াজুল ইসলামের হাতে থানা কর্তৃপক্ষ হস্তান্তর করেন। <br><br>এসময় সেখানে বাগাতিপাড়া মডেল থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম, ডিউটি অফিসার হাফিজুর রহমান এবং উদ্ধারকারী এএসআই দুলাল হোসেন উপস্থিত ছিলেন। <br><br>রিয়াজুল ইসলাম জানান, তিনি ধরেই নিয়েছিলেন ফোনটি আর ফিরে পাবেন না। কিন্তু দুই বছর পাঁচ মাসেরও বেশি সময় পর ফোন উদ্ধার করতে পারায় পুলিশকে ধন্যবাদ জানান। <br><br>এএসআই দুলাল হোসেন জানান, গত দুই বছরে প্রযুক্তির সহায়তায় তিনি ১৯ টি হারিয়ে যাওয়া স্মার্ট ফোন উদ্ধার করেছেন। <br><br>ওসি সিরাজুল ইসলাম বলেন, প্রায় আড়াই বছর পরে হলেও হারিয়ে যাওয়া ফোনটি উদ্ধারের পর মালিককে ফেরত দেওয়া সম্ভব হয়েছে। এ বিষয়ে এএসআই দুলাল হোসেনের পারদর্শিতার ভূয়সী প্রশংসা করেন তিনি। <br><br><br><br><br><br></body></HTML> 2022-04-30 13:21:58 1970-01-01 00:00:00 বঙ্গবন্ধু সেতুতে একদিনে টোল আদায় ৩ কোটি ১৮ লাখ টাকা http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114552 http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651303304_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651303304_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">ঈদযাত্রার গত ২৪ ঘণ্টায় বঙ্গবন্ধু সেতুতে ৩ কোটি ১৮ লাখ ৮ হাজার টাকা টোল আদায় হয়েছে। এই সময়ে সেতু দিয়ে পারাপার হয়েছে ৪২ হাজার ১৯৯টি যানবাহন। <br><br>স্বাভাবিক অবস্থায় প্রতিদিন গড়ে ১২ থেকে ১৩ হাজার যানবাহন পারাপার হয়ে থাকে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বঙ্গবন্ধু সেতু কর্তৃপক্ষের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসানুল কবির বাপ্পি।<br><br>সরেজমিন দেখা গেছে, ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের কিছুটা ভিন্ন চিত্র। শনিবার সকাল ৭টা থেকে ১০টা পর্যন্ত মহাসড়কের আশেকপুর, ঘারিন্দা, কান্দিলা, রাবনা, বিক্রমহাটি ও রসুলপুর এলাকায় স্বাভাবিক গতিতে চলেছে যানবাহন।<br><br>জানা গেছে, ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে যানবাহনের চাপ বৃদ্ধি পেলেও স্বাভাবিক গতিতেই যান চলাচল করছে। তবে মহাসড়কের চন্দ্রা থেকে এলেঙ্গা পর্যন্ত চারলেন সুবিধা পেয়ে যানবাহনগুলো স্বাভাবিক গতিতে আসতে পারলেও এলেঙ্গা থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্বপাড় পর্যন্ত দুই লেনের কারণে যানবাহনের গতি কমাতে বাধ্য হচ্ছে যানবাহনের চালকেরা। <br><br>ঈদ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার থেকে সরকারি ছুটি ঘোষণার পর থেকে মানুষজন প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে বাড়ি ফিরতে শুরু করেছে। অনেকেই বাড়তি ভাড়ার কারণে পরিবার নিয়ে খোলা ট্রাকে চেপে বাড়ি ফিরছে।<br><br>এদিকে মহাসড়কের এলেঙ্গা হতে বঙ্গবন্ধু সেতুপূর্ব দুইলেন সড়কের চাপ কমাতে ঢাকাগামী পরিবহনগুলো বঙ্গবন্ধু সেতুপূর্ব গোলচত্ত্বর থেকে ঘুরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। ওই পরিবহনগুলো গোলচত্ত্বর হতে ভূঞাপুর-তারাকান্দি সড়ক ব্যবহার করে ২০ কিলোমিটার ঘুরে মহাসড়কের এলেঙ্গা গিয়ে প্রবেশ করছে। <br><br>বাসযাত্রী কামরুল জানান, টাঙ্গাইল অংশে স্বাভাবিক অবস্থায় গাড়ি চলাচল করছে। যেটুকু চাপ আছে সেটা থাকবেই, কারণ ঈদের ছুটিতে এত মানুষ যানবাহনে চলাচল করছে। তিনি ভাড়ার ব্যাপারে অভিযোগ তুলে বলেন, প্রতিটি গাড়িতে প্রায় তিনগুন ভাড়া বেশি নিচ্ছে।<br><br>অপরদিকে, গাজীপুরের চন্দ্রা মোড় থেকে টাঙ্গাইলের এলেঙ্গা পর্যন্ত প্রায় ৭০ কিলোমিটার চার লেনের সুবিধা নিয়ে যানবাহন চলাচল করছে। আর এলেঙ্গা থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পর্যন্ত প্রায় ১৩ কিলোমিটার সড়ক দুই লেন হওয়ার কারণে সেখানে গাড়ির চাপ বেড়ে যায়। ফলে ধীরগতিতে যানবাহন চলাচল করতে হয়।<br><br>এ বিষয়ে ট্রাফিক পুলিশ পরিদর্শক (টিআই) এশরাজুল হক জানান, মহাসড়কে যানবাহনের চাপ আরও বেড়েছে। তবে কোথাও কোনো জট নেই। গার্মেন্টস ছুটির কারণে আজ শনিবার দুপুর থেকে যানবাহনের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। সেক্ষেত্রে পুলিশের সব প্রস্তুতি রয়েছে।<br><br><br></body></HTML> 2022-04-30 13:21:28 1970-01-01 00:00:00 ঘাটে ঘাটে চাপ, পথে পথে ভোগান্তি http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114551 http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651303251_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651303251_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">আসন্ন ঈদুল ফিতর উপলক্ষ্যে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের প্রবেশদ্বার শিমুলিয়া নৌরুটে যাত্রী ও হালকা যানবাহনের চাপ বেড়েছে। শনিবার সকাল থেকে যাত্রী ও যানবাহন পারাপারে লঞ্চ, স্পিডবোট ও ফেরি সার্ভিস বিরামহীনভাবে কাজ করে যাচ্ছে। পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে তিন সহস্রাধিক মোটরসাইকেল, চার শতাধিক প্রাইভেটকার ও তিন শতাধিক পিকআপ।<br><br>বিআইডব্লিউটিসির শিমুলিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) জামাল হোসেন বাংলাদেশ জার্নালকে জানান, সকাল থেকেই যাত্রী ও যানবাহনের চাপ রয়েছে অত্যাধিক। তবে আমাদের ব্যবস্থাপনা মতোই কাজ চলছে। তিনশত পিকআপ রয়েছে, তাদের পারাপার করা হচ্ছে না। যাত্রী, প্রাইভেটকার ও মোটরসাইকেল পারাপারের জন্য ঘাটগুলো নির্দিষ্ট করে দেয়া হয়েছে। ৩ সহস্রাধিক মোটরসাইকেল ও ৪ শতাধিক প্রাইভেট-মাইক্রোবাস পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে।<br><br>বিআইডব্লিউটিএ শিমুলিয়া ঘাটের পরিবহন পরিদর্শক মো. সোলেমান বাংলাদেশ জার্নালকে জানান, যাত্রীর চাপ রয়েছে লঞ্চ ও স্পিডবোট ঘাটে। যাত্রী পারাপারের ৮৫টি লঞ্চ ও ১৫৫টি স্পিডবোট রয়েছে।<br><br>অন্যদিকে, ঈদে ঘরমুখো মানুষের উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া রুটে। লঞ্চগুলোতে যাত্রীদের চাপে ধারণক্ষমতার দিগুণ যাত্রী বহন করতে দেখা গেছে। প্রতিটি লঞ্চে এভাবেই যাত্রীদের ঘরমুখী হতে দেখা গেছে। একটি লঞ্চ ১২০ জন যাত্রী নিয়ে নদী পার হওয়ার কথা থাকলেও দিগুণ যাত্রী নিয়ে পার হচ্ছে।<br><br>ভোর-সকালের দিকে একটু চাপ কম থাকলেও বেলা বাড়ার সাথে যেসব যাত্রী ঘাটে আসছেন, তাদের কয়েক কিলোমিটার পায়ে হেটে লঞ্চ ও ফেরি পার হতে হচ্ছে। ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থান থেকে দ্বিগুণ বাস ভাড়া দিয়ে ঘাটে আসতে হচ্ছে যাত্রীদের।<br><br>এছাড়া পাটুরিয়া মহাসড়কে গতকালের মতো আজও ব্যক্তিগত যানবাহন ও যাত্রীবাহী বাসের দীর্ঘ সারি থাকায় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে তাদের। তারপরও বাড়িতে ঈদ করতে যেতে পেরে খুশি এসব যাত্রীরা।<br><br>বর্তমানে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ২০টি ফেরি দিয়ে পারাপার সচল রাখা হয়েছে। লঞ্চ চলাচল করছে ২২টি। দুর্ঘটনা এড়াতে রাত ১০টার পর থেকে লঞ্চ বন্ধ রাখা হয়। আজও দৌলতদিয়া মহাসড়কে ফেরি ও লঞ্চঘাটের লোকাল যাত্রী নিতে আসা বাস ও পণ্যবাহীসহ ৫ শতাধিক ছোট-বড় যানবাহন পারাপারের অপেক্ষায় থাকতে দেখা গেছে। দূরপাল্লার বাস ও ছোট যানবাহন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করা হচ্ছে।<br><br>বিআইডব্লিউটিএ'র যুগ্ন পরিচালক (আরিচা) এস এম সানোয়র হোসেন জানান, ঈদে ঘরমুখী মানুষের চাপ বাড়ায় তারা লঞ্চ ও ফেরিগুলো স্বাভাবিক চলাচলে নদীতে মার্কিং পতাকা টাঙিয়েছেন। লঞ্চে যাতে অতিরিক্ত যাত্রী না আসতে পারে সেজন্য তাদের দপ্তরের কর্মকর্তা, ফায়ার সার্ভিসসহ সংশ্লিষ্টরা রয়েছেন। যাত্রীদের নিরাপত্তা ও দুর্ভোগ কমাতে কাজ করছেন বলে জানান তারা।</body></HTML> 2022-04-30 13:20:21 1970-01-01 00:00:00 এবারও ঈদুল ফিতরে বায়তুল মোকাররমে ৫ জামাত http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114550 http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651303009_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651303009_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">প্রতি বছরের মতো এবারও পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে পর্যায়ক্রমে ঈদের নামাজের ৫টি জামাত অনুষ্ঠিত হবে। শনিবার (৩০ এপ্রিল) ইসলামিক ফাউন্ডেশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।<br><br>চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী সোম বা মঙ্গলবার (২ বা ৩ মে) দেশে মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর উদযাপিত হবে।<br><br>ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সকাল ৭টা, ৮টা, ৯টা, ১০টা ও ১০টা ৪৫ মিনিটে বায়তুল মোকাররমে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে।<br><br>প্রথম জামাত হবে সকাল ৭টায়। এতে ইমাম থাকবেন বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম হাফেজ মুফতি মাওলানা মিজানুর রহমান। মুকাব্বির থাকবেন বায়তুল মোকাররম মসজিদের মুয়াজ্জিন হাফেজ মো. ইসহাক।<br><br>দ্বিতীয় জামাত সকাল ৮টায় অনুষ্ঠিত হবে। ইমাম থাকবেন বায়তুল মোকাররমের পেশ ইমাম হাফেজ মুফতি মুহিবুল্লাহিল বাকী নদভী। মুকাব্বির থাকবেন বায়তুল মুকাররমের সাবেক মুয়াজ্জিন হাফেজ মো. আতাউর রহমান।<br><br>সকাল ৯টায় তৃতীয় জামাতের ইমাম হবেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মুফাসসির মাওলানা আবু সালেহ পাটোয়ারী। খাদেম হাফেজ মো. নাছির উল্লাহ এই জামাতের মুকাব্বির থাকবেন।<br><br>চতুর্থ জামাত হবে সকাল ১০টায়। এতে ইমাম থাকবেন বায়তুল মোকাররমের পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা এহসানুল হক। মুকাব্বির থাকবেন বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের খাদেম মো. শহিদ উল্লাহ।<br><br>পঞ্চম ও সর্বশেষ জামাত হবে সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে। এতে ইমাম থাকবেন বায়তুল মোকারমের পেশ ইমাম মাওলানা মুহিউদ্দিন কাসেম। মুকাব্বির হবেন খাদেম মো. রুহুল আমিন।<br><br>এসব জামাতে কোনো ইমাম অনুপস্থিত থাকলে বিকল্প ইমাম হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মুফতি মাওলানা মো. আব্দুল্লাহ।<br><br><br><br><br></body></HTML> 2022-04-30 13:16:33 1970-01-01 00:00:00 আ’লীগ নেতাকে বেঁধে নির্যাতন, ছেলেসহ ইউপি চেয়ারম্যান গ্রেফতার http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114549 http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651302972_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651302972_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">চট্টগ্রামের পটিয়ায় আওয়ামী লীগ নেতাকে খুঁটির সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন হামলার ঘটনায় হাইদগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিএম জসিম (৫০) ও তার ছেলে মুসফিক উদ্দিন ওয়াসিকে (২৭) গ্রেফতার করেছে পুলিশ।<br><br>শনিবার (৩০ এপ্রিল) ভোর রাতে চেয়ারম্যানের হাইদগাঁও গ্রামের বাড়ি থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এর আগে শুক্রবার (২৯ এপ্রিল) বিকেল ৩টায় পটিয়া থানাধীন হাইদগাঁও ইউনিয়নের পশ্চিম হাইদগাঁও গাউছিয়া কমিউনিটি সেন্টারের সামনে এ হামলার ঘটনা ঘটে।<br><br>ঘটনার পর ইফতার মাহফিলের আয়োজন পণ্ড হয়ে যায়। জিতেন কান্তি গুহ হাইদগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদ্য সাবেক সভাপতি বলে জানা গেছে।<br><br>পুলিশ জানায়, শুক্রবার হাইদগাঁও ইউনিয়ন আ’লীগের উদ্যাগে ইফতার পার্টির আয়োজন করা হয়। এতে ইউপি চেয়ারম্যান বিএম জসিমকে দাওয়াত না দেওয়া ও ইউনিয়ন আ’লীগের সাবেক সভাপতি জিতেন কান্তি গুহকে দাওয়াত দেওয়া নিয়ে বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে জিতেন গুহকে বেদম মারধর করে গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখা হয়।<br><br>এ হামলার একটি ছবি তাৎক্ষণিক সামাজিকযোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে দেশজুড়ে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। ঘটনার পর জিতেন গুহের ভাই বাদী হয়ে ইউপি চেয়ারম্যান বিএম জসিমসহ সাত জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা করে। এ মামলায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে জসিম ও তার ছেলেকে গ্রেফতার করেছে।<br><br>পটিয়া থানার ওসি রেজাউল করিম মজুমদার জানিয়েছেন, আ’লীগ নেতাকে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন করার ঘটনায় হাইদগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিএম জসিম ও তার পুত্র ওয়াসিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। হামলায় জড়িত অন্যদেরও গ্রেফতারে অভিযান চলছে<br><br><br></body></HTML> 2022-04-30 13:15:54 1970-01-01 00:00:00 ৮ বিভাগে হতে পারে ঝড়-বৃষ্টি, কমবে তাপমাত্রা http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114548 http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651302938_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651302938_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">কালবৈশাখী ঝড় ও বৃষ্টির প্রবণতা বাড়ছে। শনিবার (৩০ এপ্রিল) দেশের আট বিভাগেই কম-বেশি ঝড় বৃষ্টি হতে পারে। এ অবস্থায় তাপমাত্রাও কিছুটা কমার পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।<br><br>শুক্রবার (২৯ এপ্রিল) সকাল ৬টা থেকে শনিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রাম বিভাগ ছাড়া সব বিভাগে কম-বেশি বৃষ্টি হয়েছে। এসময়ে সবচেয়ে বেশি ৩৮ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে সিলেটে। ঢাকা বিভাগের মধ্যে শুধু ফরিদপুরে ১ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।<br><br>কিছুদিন ধরেই ঢাকাসহ প্রায় সারাদেশেই গরমের তীব্রতা ছিল। তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস পার হয়ে যায়।<br><br>তবে ঢাকায় এখনো কাঙ্ক্ষিত বৃষ্টির দেখা মেলেনি। তীব্র গরমে হাঁসফাঁস করছেন নগরবাসী। তবে গত রাতে ঢাকায় দমকা বাতাস ছিল।<br><br>আবহাওয়াবিদ মুহাম্মদ আবুল কালাম মল্লিক জানান, শনিবার সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় রংপুর, রাজশাহী, ঢাকা, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝড়ো হাওয়ার সঙ্গে প্রবল বিজলি চমকানোসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে শিলাবৃষ্টি হতে পারে।<br><br>এসময়ে সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে বলেও জানান তিনি।<br><br>আবুল কালাম মল্লিক আরও বলেন, ‘টাঙ্গাইল, গোপালগঞ্জ, ফরিদপুর, মাদারীপুর, রাঙ্গামাটি, রাজশাহী ও পাবনা জেলাসহ খুলনা বিভাগের ওপর দিয়ে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা কিছু এলাকা হতে প্রশমিত হতে পারে।’<br><br>আগামী তিনদিন বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টির প্রবণতা অব্যাহত থাকতে পারে বলেও জানিয়েছেন তিনি।<br><br>অন্যদিকে শনিবার সকাল ৯টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত দেশের অভ্যন্তরীণ নদীবন্দরগুলোর জন্য আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রংপুর, দিনাজপুর, রাজশাহী, পাবনা, বগুড়া, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, কুমিল্লা এবং সিলেট অঞ্চলসমূহের ওপর দিয়ে পশ্চিম বা উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫-৬০ কিলোমিটার বেগে অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রবৃষ্টি হতে পারে। এসব এলাকার নদীবন্দরগুলোকে ১ নম্বর নৌ সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।<br><br><br><br><br><br></body></HTML> 2022-04-30 13:15:24 1970-01-01 00:00:00 অতীতের চেয়ে এবার ঈদযাত্রা স্বস্তিদায়ক: কাদের http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114547 http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651302907_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651302907_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে এবার ঘরমুখো মানুষের ঈদ যাত্রা স্বস্তিদায়ক বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।<br><br>শনিবার রাজধানীর মহাখালী বাস টার্মিনাল পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের একথা বলেন কাদের।<br><br>ওবায়দুল কাদের বলেন, আজ (শনিবার) ঘরমুখো মানুষের চাপ কম আছে। ঈদে ঘরমুখো মানুষের সময়ের অবসান অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে এবার অবস্থা ভালো। এমনকি গাজীপুর এলেঙ্গা মহাসড়কের অবস্থাও ভালো। পরিবহনগুলো নিবির্ঘ্নভাবে চলাচল করছে। সড়কে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও তৎপর আছে।<br><br>সেতুমন্ত্রী বলেন, অতিরিক্ত ভাড়া না নেওয়ার জন্য বাস মালিক ও শ্রমিকদের বলা হয়েছে।<br><br>মহাখালী বাস টার্মিনালের রাস্তার উপরে যত্রতত্র বাস রাখার কারণে প্রতিনিয়ত যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। এ বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, এখন থেকে বাস মালিকরা রাস্তার উপরে যেন গাড়ি না রাখেন সেজন্য তাদের সর্তক হতে হবে এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন।<br><br>বাস মালিকরা অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়ার কথা অস্বীকার করলেও সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, অভিযোগ যেহেতু আসছে তাহলে অবশ্যই অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়া হচ্ছে। যারাই অতিরিক্ত ভাড়া নিবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। মাঠে আমাদের মাঠে আমাদের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা আছেন।<br><br>এর আগে ওবায়দুল কাদের মহাখালী বাস টার্মিনালের পরিদর্শন করে যাত্রীদের খোঁজ খবর নেন।<br><br><br><br><br><br></body></HTML> 2022-04-30 13:14:51 1970-01-01 00:00:00 অনলাইন ব্যাংকিংয়ে লেনদেন সীমা উঠে গেল http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114546 http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651302875_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651302875_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">অনলাইন বা ইন্টারনেটভিত্তিক ব্যাংকিংয়ে লেনদেনের সীমা তুলে দেওয়া হলো। এখন থেকে যতবার খুশি ততবার লেনদেন করতে পারবেন গ্রাহক। এতদিন এ ব্যবস্থায় ব্যক্তি দৈনিক সর্বোচ্চ ১০টি এবং প্রতিষ্ঠান সর্বোচ্চ ২০টি লেনদেন করতে পারত।<br><br>বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংক এক সার্কুলার জারি করে লেনদেনে সংখ্যার সীমা প্রত্যাহার করেছে। তবে ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের দৈনিক ও একক লেনদেনের সর্বোচ্চ সীমা আগের অবস্থায় রয়েছে।<br><br>গত বছরের ৩০ জুন এক সার্কুলারে বাংলাদেশ ব্যাংক অনলাইন বা ইন্টারনেট ভিত্তিক ব্যাংক ব্যবস্থায় ব্যক্তির ক্ষেত্রে দৈনিক লেনদেনের সর্বোচ্চ সীমা ১০ লাখ টাকা এবং প্রতিষ্ঠানের বেলায় তা ২৫ লাখ টাকা নির্ধারণ করে।<br><br>অন্যদিকে ব্যক্তি গ্রাহক একবারে সর্বোচ্চ তিন লাখ টাকা লেনদেন করতে পারেন আর প্রতিষ্ঠান একবারে পাঁচ লাখ টাকার লেনদেন করতে পারে, যাকে একক লেনদেন বলা হয়। লেনদেনের পরিমাণের এ সীমা অপরিবর্তিত রেখেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। তবে অনলাইনে বা ইন্টারনেটে একই ব্যাংকের এক হিসাব থেকে অন্য হিসাবে অর্থ স্থানান্তরের সর্বোচ্চ সীমা ব্যাংক তার স্বীয় ঝুঁকি এবং গ্রাহকের লেনদেনের ইতিহাস বিবেচনায় নিজেই নির্ধারণ করবে। আগে এ সীমা নির্ধারণ করা ছিল না।<br><br>সার্কুলার অনুযায়ী অনলাইন বা ইন্টারনেট ভিত্তিক ব্যাংকিং ব্যবস্থায় পণ্য বা সেবামূল্য পরিশোধ বা আদায় (ই-কমার্সসহ), ইউটিলিটি বিল, ক্রেডিট কার্ডের বিল পরিশোধ ইত্যাদির উদ্দেশ্যে এক ব্যাংক হিসাব থেকে অন্য ব্যাংক হিসাবে অর্থ স্থানান্তর করা যাবে।<br><br>বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলারে বলা হয়েছে, ইন্টারনেট বা স্মার্টফোন ব্যবহার করে অনলাইন ব্যাংকিং লেনদেনের মাধ্যমে ই-কমার্সের পণ্য বা সেবার মূল্য পরিশোধ বা আদায় জনসাধারণের কাছে দিন দিন জনপ্রিয় হচ্ছে। এ ধরনের লেনদেন পদ্ধতি সহজ ও নিরাপদ করার জন্য অনলাইন বা ইন্টারনেট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে অর্থ স্থানান্তরের সীমাও পুনর্নির্ধারণের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছে।<br><br><br><br><br><br></body></HTML> 2022-04-30 13:14:17 1970-01-01 00:00:00 ২০২১ ভূমধ্যসাগর ও আটলান্টিকে ৩ হাজারের বেশি অভিবাসনপ্রত্যাশীর মৃত্যু http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114545 http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651302842_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651302842_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">২০২১ সালে ভূমধ্যসাগর ও আটলান্টিক মহাসাগরে ডুবে তিন হাজারের বেশি অভিবাসনপ্রত্যাশী মারা গেছেন।<br><br>বার্তা সংস্থা এএফপি জানায়, গতকাল শুক্রবার জাতিসংঘ শরণার্থীবিষয়ক সংস্থার (ইউএনএইচসিআর) অভিবাসনবিষয়ক একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে।<br><br>প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত বছর ভূমধ্যসাগর ও আটলান্টিক মহাসাগর পাড়ি দিতে গিয়ে ৩ হাজার ৭৭ জন নিখোঁজ হন। যা ২০২০ সালে ছিল ১ হাজার ৫৪৪ জন।<br><br>সংস্থাটির সদর দপ্তর জেনেভায় সাংবাদিকদের ইউএনএইচসিআরের মুখপাত্র শাবিয়া মান্টো বলেন, ‘চলতি বছরের শুরুতে আশঙ্কাজনকভাবে অতিরিক্ত ৪৭৮ জন ব্যক্তি সমুদ্রে মারা যান বা নিখোঁজ হন।’<br><br>তিনি আরও বলেন, ‘সমুদ্রযাত্রার অনুপযুক্ত, রবারের নৌকায় গাদাগাদি করে বেশির ভাগ সমুদ্রযাত্রা হয়েছে যার মধ্যে অনেকগুলো ডুবে গেছে, প্রাণহানি হয়েছে।’<br><br>সমুদ্রযাত্রার বেশির ভাগই হয় মৌরিতানিয়া ও সেনেগালের মতো পশ্চিম আফ্রিকার উপকূল থেকে। এই দুই দেশ থেকে কানারি দ্বীপপুঞ্জ হয়ে সমুদ্রযাত্রা বেশি বিপজ্জনক। সাধারণত এই পথগুলো পাড়ি দিতে কখনো ১০ দিন পর্যণ্ত লেগে যায়।<br><br>ইউএনএইচসিআরের প্রতিবেদনে এই নৌপথকে ‘ভীষণ বিপজ্জনক’ বলে উল্লেখ করেছে।<br><br>প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, গত বছর ১ হাজার ৯২৪ জন মধ্য ও পশ্চিম ভূমধ্যসাগরের নৌপথে নিখোঁজ বা মারা যান। কানারি দ্বীপপুঞ্জ হয়ে উত্তর আফ্রিকার আরেকটি নৌপথে মারা গেছেন আরও ১ হাজার ১৫৩ জন।<br><br>প্রতিবেদনে সতর্ক করা হয় যে, কোভিড-১৯ মহামারি ও সীমান্ত বন্ধ থাকায় অভিবাসনপ্রত্যাশীরা বিপজ্জনক যাত্রার পথ বেছে নিতে পারেন। এ ছাড়া, রাজণৈতিক অস্থিতিশীলতা ও যুদ্ধ, জলবায়ু পরিবর্তন দেশ ছাড়তে এ বিপজ্জনক পথ বেছে নেওয়ার হার বাড়িয়ে দিতে পারে।<br><br><br><br><br></body></HTML> 2022-04-30 13:13:45 1970-01-01 00:00:00 আবুল মাল আবদুল মুহিতের জীবনাবসান http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114544 http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651302806_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651302806_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">সাবেক অর্থমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য আবুল মাল আবদুল মুহিত মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৮ বছর।<br><br>শুক্রবার দিবাগত রাত ১২:৫৬ মিনিটে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।<br><br>পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ বিভাগ থেকে ঢাকাটাইমসকে এ তথ্য জানানো হয়েছে।<br><br>মুহিতের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।<br><br>গত বছর করোনায় আক্রান্ত হন ৮৮ বছর বয়সী মুহিত। ওই বছরের ২৯ জুলাই তাকে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি করা হয়। সেখানে করোনামুক্ত হয়ে বাসায় ফেরেন তিনি। তখন থেকে শারীরিকভাবে অনেক দুর্বল প্রবীণ এই অর্থনীতিবিদ। চলতি বছরের মার্চে ফের অসুস্থ হয়ে পড়েন মুহিত।<br><br>১৯৩৪ সালে সিলেটের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন আবুল মাল আবদুল মুহিত। তৎকালীন সিলেট জেলা মুসলিম লীগের নেতা আবু আহমদ আবদুল হাফিজের দ্বিতীয় ছেলে মুহিত। তার মা সৈয়দ শাহার বানু চৌধুরীও রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন।<br><br>১৯৫৫ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে মাস্টার্স করার পর অক্সফোর্ড ও হার্ভার্ডে উচ্চশিক্ষা নেন মুহিত। ১৯৫৬ সালে পাকিস্তান সিভিল সার্ভিসে যোগ দেয়ার পর তখনকার পাকিস্তান এবং পরে স্বাধীন বাংলাদেশে সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে তিনি দায়িত্ব পালন করেন।<br><br>২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে তিনি পান অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব। ২০১৪ সালে আওয়ামী লীগ টানা দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় এলে অর্থ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব তার কাঁধেই রাখেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মোট ১১ বার ও টানা নয়বার বাংলাদেশের বাজেট ঘোষণা করার রেকর্ড রয়েছে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মুহিতের।<br><br>আবুল মাল আবদুল মুহিতের স্ত্রী সৈয়দা সাবিয়া মুহিত একজন ডিজাইনার। কন্যা সামিয়া মুহিত একজন ব্যাংকার এবং মুদ্রা নীতি খাতের একজন বিশেষজ্ঞ। তাদের জ্যেষ্ঠ পুত্র শাহেদ মুহিত একজন বাস্তুকলাবিদ এবং কনিষ্ঠ পুত্র সামির মুহিত একজন শিক্ষক। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন তার ছোট ভাই।<br><br><br><br></body></HTML> 2022-04-30 13:13:11 1970-01-01 00:00:00 পদ্মায় ১১ যাত্রীসহ ডুবল স্পিডবোট http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114543 http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651302771_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651302771_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">পদ্মায় যাত্রীসহ স্পিডবোট ডুবির ঘটনা ঘটেছে। শনিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটের পদ্মা সেতুর কাছে বাংলাবাজারগামী একটি স্পিডবোট ডুবে যায়।<br><br>বোটটিতে যাত্রী ছিলেন ১১ জন। তাদের উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে বিআইডব্লিউটিএর বাংলাবাজার ঘাট সূত্র।<br><br>সংশ্লিষ্টরা জানান, শনিবার সকালে শিমুলিয়া থেকে একটি স্পিডবোট শিবচরের বাংলাবাজার ঘাটের উদ্দেশ্যে রওনা হয়। বোটটি পদ্মা সেতুর কাছে গেলে ঢেউয়ের ধাক্কায় উল্টে যায়। খবর পেয়ে স্থানীয় জেলে, নৌকা ও নৌপুলিশের টিম গিয়ে যাত্রীদের উদ্ধার করে।<br><br>ঘাটের একটি সূত্র জানিয়েছে, শিমুলিয়া থেকে ধারণক্ষমতার বেশি যাত্রী নিয়ে রওনা দেয় ‘বাবু’ নামে স্পিডবোটটি। বোটটির চালকের নাম মো. উজ্জ্বল। সেতু অতিক্রমের সময় প্রচণ্ড ঢেউয়ের ধাক্কায় বোটটি উল্টে যায়।<br><br>কাঁঠালবাড়ী নৌপুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক জাহানুর আলী বলেন, বোটটির তলা ফেটে ডুবে যায়। তবে সব যাত্রীকে উদ্ধার করা হয়েছে।<br><br><br><br></body></HTML> 2022-04-30 13:12:35 1970-01-01 00:00:00 জুন থেকে দুই কোটি শিশু করোনা টিকা পাবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114542 http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651302732_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/30/1651302732_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, আগামী জুন মাস থেকে পাঁচ বছর থেকে ১২ বছর বয়সী দুই কোটি শিশুকে ফাইজারের করোনার টিকা দেয়া হবে। ইতোমধ্যে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা থেকে শিশুদের টিকার ব্যাপারে অনুমোদন নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি আমাদের হাতে ৩০ লাখ টিকাও চলে এসেছে। শিশুদের টিকা গ্রহণে যাতে কোনো সমস্যা না হয় তার জন্য রেজিস্ট্রেশনের ব্যবস্থাও নেওয়া হবে।<br><br>শুক্রবার সন্ধ্যায় সদর উপজেলার গড়পাড়াস্থ শুভ্র সেন্টারে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর উদ্যোগে আয়োজিত দোয়া ও ইফতার মাহফিলে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।<br><br>স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, করোনা টিকার উদ্দিষ্ট জনগোষ্ঠীর ৯৮ শতাংশ লোক টিকার আওতায় চলে আসায় আমাদের দেশে করোনার চতুর্থ ঢেউ আসবে না। আমরা ইতোমধ্যে প্রায় ২৫ কোটি ডোজ টিকা দিয়ে ফেলেছি। আমরা এখন বুস্টার ডোজ দিচ্ছি। যারা বুস্টার ডোজ নেননি তারা দ্রুত বুস্টার ডোজ নেবেন।<br><br>জাহিদ মালেক বলেন, টিকা দেওয়ার সফলতার জন্য প্রধানমন্ত্রী ভ্যাক্সিন হিরো হয়েছিলেন। এবার তাকে ভ্যাক্সিন চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হয়েছে।<br><br>এ সময় অন্যান্যের মধ্যে জেলা প্রশাসক আব্দুল লতিফ, পুলিশ সুপার গোলাম আজাদ খান, জেলা পরিষদের প্রশাসক গোলাম মহিউদ্দিন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সালাম, পৌর মেয়র রমজান আলীসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা উপস্থিত ছিলেন।<br><br><br><br><br><br><br><br></body></HTML> 2022-04-30 13:11:49 1970-01-01 00:00:00 কুমিলায় রাতদিন জমজমাট ঈদ বাজার http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114541 http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/26/1651064268_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><span style="font-weight: bold;"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/26/1651064268_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">কুমিল্লা প্রতিনিধি ॥</span><br>কুমিল্লায় নতুন পোশাকে ঈদ উদযাপনে কেনাকাটায় জমে উঠেছে and nbsp; ঈদ বাজার। সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত তরুণ-তরুণীসহ নানান বয়সী মানুষের পদচারণায় মুখর নগরীর বিপণী বিতানগুলো। পছন্দের পোশাক কিনতে ঘুরছেন এক মার্কেট থেকে অন্য মাকের্টে। বিশেষ করে কুমিল্লা নগরীর শপিং মল ও বিভিন্ন মার্কেটের থ্রি-পিস কর্ণারগুলো রোজার শুরু থেকেই ক্রেতা আকর্ষণে এগিয়ে রয়েছে।<br>ভারত সীমান্তবর্তী এ জেলার ফ্যাশন সচেতন তরুণীদের পোশাকের মধ্যে বরাবরের মতো এবারও পছন্দের শীর্ষে রয়েছে ভারতীয় বিভিন্ন ব্র্যান্ডের পোশাক। ক্রেতা-বিক্রেতাদের সমাগমে দিনরাত যেন একাকার হয়ে গেছে। তবে প্রতিটি স্থানেই পুরুষের তুলনায় নারীদের উপস্থিতি বেশি লক্ষ্য করা গেছে।<br><br>ব্যবসায়ীরা জানান, করোনার কারণে দোকান বন্ধ থাকায় প্রায় আড়াই বছর লোকসান গুনতে হয়েছে। অনেকে পুঁজি ভেঙে খেয়েছেন। তবে এবার করোনার প্রকোপ কম থাকায় বাজারে ক্রেতা সমাগম ঘটেছে আশানুরূপ। এতে তারা আশা করছেন কিছুটা হলেও এবার পুষিয়ে নিতে পারবেন।<br>সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, কুমিল্লা নগরীর প্রতিটি সড়কেই রিকশা, ইজিবাইক ও সিএনজিচালিত অটোরিকশার দীর্ঘ লাইন। এতে প্রতিদিনই ক্রেতা সাধারণের ভিড়ে যানজটে নাকাল নগরবাসী। সড়ক ব্যবস্থাপনায় হিমশিম খাচ্ছে জেলা ট্রাফিক বিভাগ।<br><br>ঈদের দিনটি রাঙিয়ে তুলতে জেলা সদর ছাড়াও কুমিল্লার ১৭ উপজেলাসহ আশপাশের জেলাগুলো থেকেও প্রতিদিন নগরে প্রবেশ করছে হাজার হাজার মানুষ। পছন্দের পোশাক ঘুরছেন মার্কেটগুলোতে। যে দোকানেই পছন্দ হচ্ছে সেখান থেকেই ক্রেতারা কেনাকাটা সেরে নিচ্ছেন। দামও নাগালের মধ্যেই রয়েছে বলে জানিয়েছেন ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ে। বিক্রিও হচ্ছে বেশ ভালো।<br><br>নগরীর কান্দিরপাড়ের অভিজাত শপিং মল প্লানেট এসআর, সাত্তার খান কমপ্লেক্স, খন্দকার হক টাওয়ার, ময়নামতি গোল্ডেন টাওয়ার, আনন্দ সিটি সেন্টার, গণি ভূঁইয়া ম্যানশন, নিউ মার্কেট, হোসনেআরা ম্যানশন, সাইবার ট্রেড, চৌরঙ্গী শপিং সেন্টার, নূর মার্কেট, হিলটন টাওয়ার, রামঘাট এলাকার কুমিল্লা টাওয়ার, ইজি ফ্যাশন, টপটেইন, নগরীর নজরুল এভিনিউতে আড়ং, রঙ, বিশ্বরঙ, সাদাকালো, অঞ্জনস, রেইস কোর্সের ইস্টার্ন এয়াকুব প্লাজা, বাদুরতলায় ইনফিনিটি, ক্যাটসআইসহ ব্র্যান্ডের শোরুমগুলোতে হরদম চলছে কেনাকাটা।<br><br>সাত্তার খান কমপ্লেক্সে থ্রি-পিস কিনতে আসা নগরীর চর্থা এলাকার বাসিন্দা মোশের্দ and nbsp; আক্তার and nbsp; বলেন, দুই বছর শপিং করতে পারিনি। তাই নিজের পছন্দমতো পোশাক কিনতে মার্কেটে চলে এলাম। পছন্দ মতো জামা কিনেছি। দামও নাগালের মধ্যে ছিল।<br>সাইফুল ইসলাম নামে এক ক্রেতা জানান, এবার ঈদের শপিং করে স্বস্তি পেয়েছি। কারণ কাপড় ব্যবসায়ীরা দাম নিয়ে তেমন বাড়াবাড়ি করেনি। মোটামোটি সাধ্যের মধ্যে সব কেনাকাটা করতে পেরেছি।<br><br>খন্দকার হক টাওয়ারের দেহনন্দন ফেব্রিকেইশনের স্বত্তাধিকারী আবু রায়হান and nbsp; and nbsp; বলেন, বিদেশি পোশাকের সঙ্গে দেশি পোশাকও পাল্লা দিয়ে চলছে। কুমিল্লা যেহেতু খাদির জন্য বিখ্যাত, সে হিসেবে খাদিকে গুরুত্ব দিয়ে আমরা ক্রেতাদের জন্য পাঞ্জাবি তৈরি করে থাকি এবং স্বল্প লাভেই বিক্রি করছি। কারণ করোনায় গত দুই বছর ব্যবসা করতে পারিনি, তাই এবার নামমাত্র লাভে পাঞ্জাবি বিক্রি করছি। এতে আমরা যেমন খুশি, কিনতে পেরে ক্রেতারাও খুশি।<br><br>নগরীর প্লানেট এসআর’র আপসানা রূপ বিলাশীর মালিক ওমর ফারুক and nbsp; জানান, তরুণীদের পছন্দের তালিকায় ভারতীয় ও পাকিস্তানি ড্রেসের চাহিদা খুব বেশি। এবারের পোশাকে বৈচিত্রময় ডিজাইন রয়েছে। অন্যবারের চেয়ে অনেক ভিন্নতা ও নান্দনিকতার কারণেই তাদের পছন্দের তালিকায় শীর্ষে রেখেছেন ক্রেতারা। দামও নাগালের মধ্যে থাকায় বিক্রিও হচ্ছে বেশ ভালো। কুমিল্লা দোকান মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আতিক উল্লাহ খোকন and nbsp; বলেন, গত কয়েক বছর মহামারি করোনার কারণে ব্যবসায়ীরা পুঁজি হারিয়েছেন। তারা পুঁজি সংকটে ভুগছেন। বিভিন্নভাবে ধার-দেনা করে এবারের ঈদে ব্যবসা পরিচালনা করছেন। সংকট কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছেন ব্যবসায়ীরা। আশা করি এবছর ব্যবসায়ীরা কিছুটা স্বস্তিবোধ করবেন</body></HTML> 2022-04-27 18:57:19 1970-01-01 00:00:00 কুমিল্লা সিটি নির্বাচনকে ঘিরে নগরীতে পুলিশের মহড়া চালাচ্ছে http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114540 http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/26/1651064172_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/26/1651064172_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">কুমিল্লা প্রতিনিধি ॥<br>আসন্ন কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নগরীতে মহড়া চালাচ্ছে জেলা পুলিশ। মহড়ায় পুলিশের and nbsp; সিআরটি টিম অংশ গ্রহণ।<br>গতকাল মঙ্গলবার বেলা ১১ টায় কুমিল্লা পুলিশ লাইনস থেকে মহড়া শুরু হয়। নগরীর ২৭ টি ওয়ার্ড পরিক্রমা শেষে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এসে মহড়া শেষ হয়।<br>পুলিশ সুপার মোঃ ফারুক আহমেদ এর দিকনির্দেশনায় মহড়ার নেতৃত্ব দেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ( প্রশাসন ও অর্থ) and nbsp; কাজী আবদুর রহীম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) এম.তানভীর আহমেদ, and nbsp; অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ( সদর সার্কেল) মোঃ সোহান সরকার, and nbsp; অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ( ট্রাফিক এ্যান্ড প্রসিকিউশন) রাজন দাশ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার and nbsp; (সদর দক্ষিন সার্কেল) প্রশান্ত পাল, কোতয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সহিদুর রহমান, সদর দক্ষিন মডেল থানার ওসি দেবাশীষ চৌধুরীসহ জেলা পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ।<br>মহড়া শেষে পুলিশ সুপার মোঃ ফারুক আহমেদ জানান, কুমিল্লা and nbsp; সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে ঘিরে জেলা পুলিশ ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে। এই মহড়া তারই একটি অংশ। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কোন প্রকার অপ্রীতিকর পরিস্থিতি তৈরী না হয় সে জন্য পোষাকি পুলিশের সাথে সাদা পোষাকের গোয়েন্দা পুলিশের নজরধারী বৃদ্ধি করা হয়েছে। প্রয়োজনে অন্য জেলা থেকেও পুলিশ আনা হবে। একটি অবাধ সুষ্ঠ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন সম্পন্ন করতে কুমিল্লা পুলিশ বদ্ধপরিকর।<br>উল্লেখ্য, আগামী ১৫ জুন কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত and nbsp; হবে।</body></HTML> 2022-04-27 18:55:25 1970-01-01 00:00:00 সোনাগাজীতে এসএসসি পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ পেলো ৫ শিক্ষার্থী! http://www.hazarikapratidin.com/details.php?id=114539 http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/25/1650904579_th.jpg <HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://www.hazarikapratidin.com/2022/04/25/1650904579_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">সোনাগাজী প্রতিনিধি ॥<br>ফেনীর সোনাগাজীর আর.এম.হাট.কে উচ্চ বিদ্যালয়ের হত দরিদ্র ৫ জন ছাত্র-ছাত্রী শিক্ষার্থীদের মেধা-বিকাশের পথ সুগম করতে আর্থিক সহায়তায় ২০২২ সালের এসএসসি পরিক্ষা দেওয়ার সুযোগ করে দিলেন আপসিরের নেছা মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন(অঘগঋ)।<br> and nbsp;ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে মো.নুরুল আমিন খোকন সোমবার দুপুরে আর.এম.হাট.কে উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান কার্যালয়ে প্রধান শিক্ষকের মাধ্যমে এসএসসি পরিক্ষার্থীদের রেজিস্ট্রেশন করার জন্য অর্থ সহায়তার টাকা শিক্ষার্থীদের কাছে হস্তান্তর করেন।<br>যে পাঁচজন ছাত্র-ছাত্রীদের এসএসসি পরিক্ষা দেওয়ার মানবিক সুযোগ দেওয়া হলো তারা হলেন, দৌলতকান্দি আবুল হোসেনের মেয়ে, বিবি আমেনা উর্মি- মানবিক বিভাগ,সোনাগাজী সুজাপুরের ইউসুফ নবীর মেয়ে শারমিন আক্তার,মানবিক বিভাগ,মতিগঞ্জ সুলাখালীর মো: হানিফের মেয়ে জান্নাতুল নাঈম,মানবিক বিভাগ, ছাড়াইতকান্দি আবদুল মন্নানের মেয়ে জান্নাতুল নাঈম,মানবিক বিভাগ,সোনাগাজী সাতবাড়ীয়ার মৃত ফরহাদ আব্বাসের ছেলে ইয়াছির আব্বাস, কমার্স বিভাগ।<br>এ প্রসঙ্গে আপসিরের নেছা মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক,ডলি কামাল বলেন, “এই ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠার পর থেকেই সোনাগাজীর অসহায় ও দরিদ্র ছাত্র -ছাত্রী ও অসহায় মানুষের কল্যাণে নিজেদের সর্বোচ্চটা দিয়ে কাজ করে যাচ্ছি আমরা।<br>এক্ষেত্রে and nbsp; শিক্ষার বিষয়টিকে আমরা বরাবরই অধিক গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করে থাকি। সেই ধারাবাহিকতার অংশ হিসেবেই এবার আর.এম.হাট.কে উচ্চ বিদ্যালয়ের দরিদ্র মেধাবী শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়িয়েছে আপসিরের নেছা মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন(অঘগঋ)। তিনি বলেন,সোনাগাজীর দরিদ্র ও অসহায় মানুষের কল্যাণ এবং শিক্ষার প্রসারে কাজ করে যাবে আপসিরের নেছা মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন(অঘগঋ)। আর.এম.হাট.কে উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক and nbsp; মিজানুর রহমান বলেন, আমাদের মেধাবী ছাত্র ছাত্রীদের ক্ষুদ্র প্রচেষ্টাকে সাফল্যম-িত করতে আপসিরের নেছা মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন(অঘগঋ) যেভাবে আন্তরিকতার সঙ্গে সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছে, সেটি সত্যিই অতুলনীয়। তাদের এই উদার মানসিকতা সমাজের অন্যদেরকেও উদ্বুদ্ধ করবে বলে আশা রাখি”। <br></body></HTML> 2022-04-25 22:35:26 1970-01-01 00:00:00